সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০২:২৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম:
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
জুতার মালা গলায় ঝুলিয়ে শিক্ষককে লাঞ্চিত, গ্রেফতার ১

জুতার মালা গলায় ঝুলিয়ে শিক্ষককে লাঞ্চিত, গ্রেফতার ১

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জে মাওলানা আলাউদ্দিন ব্যাপারী নামে এক মাদরাসা শিক্ষককে জুতার মালা গলায় ঝুলিয়ে লাঞ্চিত করেছেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন দুইজন ইউপি সদস্য ও অপর চারজন।

উপ বৃত্তির টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বুধবার দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদে  সালিশি বৈঠকের পর এমন বর্বর বিচার করেন স্থানীয় চেয়ারম্যান মোস্তফা রাঢ়ী।

এ ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও শেয়ার হলে তা ভাইরাল হয়ে যায়। পরে  বুধবার রাতে বজলু আকন নামে একজনকে স্থানীয় দড়িচর খাজুরিয়া ইউনিয়ন থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ চেয়ারম্যান মোস্তফা রাঢ়ীসহ অপর অভিযুক্তদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু করেছে।

ওসি আবিদুর রহমান জানায়, এই ঘটনায় লাঞ্ছিত শিক্ষক আলাউদ্দিন নিজেই বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার সকালে একটি মামলা দায়ের করেছেন। সেই মামলায় বজুলকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। শিক্ষক আলাউদ্দিন পার্শ্ববর্তী একটি মসজিদের ইমামও। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

অভিযোগ উঠেছে, চেয়ারম্যান মোস্তফাসহ সালিশদাররা ওই শিক্ষককে নাজেহালের পাশাপাশি নির্যাতনও করেছেন। বুধবার রাতে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়-মাদরাসা শিক্ষক আলাউদ্দিনের গলায় জুতার মালা ঝুলিয়ে দিয়ে চেয়ারম্যান মোস্তফা রাঢ়ী শাসাচ্ছেন। এ সময় চেয়ারম্যান ধূমপান করছিলেন।

এসময় ইউপি সদস্য ছত্তার শিক্ষকের কাছে গিয়ে তার মাথার টুপি খুলে নিয়ে যান। ইউনিয়ন পরিষদের চারদিকে সাধারণ মানুষের জটলা দেখা গেছে। এ সময় নির্যাতনের শিকার ওই শিক্ষককে বিমর্ষ দেখা গেছে।

ইউএনও পিযুষ চন্দ্র দে বলেন, একজন শিক্ষককে ইউপি চেয়ারম্যানের এধরনের শাস্তি দেয়ার কোনো অধিকার নেই। এটা অগ্রহণযোগ্য। ঘটনাটি তদন্তের জন্য উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

দড়ির চর খাজুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা রাঢ়ী জানান, আলাউদ্দিন দড়িরর চর খাজুরিয়া দাখিল মাদরাসার শিক্ষক। তিনি পার্শ্ববর্তী একটি মসজিদের ইমাম। শিক্ষক আলাউদ্দিন সম্প্রতি ওই মাদরাসার দুই ছাত্রীর উপ বৃত্তির টাকা আত্মসাৎ করেছেন। এ ঘটনায় ছাত্রীর খালু ছত্তার সিকদার ইউপিতে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

ওই অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি (চেয়ারম্যান) সহ দুইজন ইউপি সদস্য শহিদ ও ফিরোজ এবং স্থানীয় চারজন গণ্যমান্য ব্যক্তি বুধবার দুপুরে সালিশে বসেন। সেখানে সালিশদাররা বিচারে রায় দেয় শিক্ষক আলাউদ্দিন উপ বৃত্তির ৪ হাজার ৮শ’ টাকা ফেরত দিবে নতুবা জুতার মালা পড়বে। এ অবস্থায় ওই শিক্ষকই স্বেচ্ছায় জুতার মালা পড়তে রাজি হন। পরে সবার উপস্থিতিতে ইউনিয়ন পরিষদে জুতার মালা পড়িয়ে শিক্ষককে ঘুরানো হয়।

মাদরাসা শিক্ষক আলাউদ্দিন ব্যাপারী সাংবাদিকদের জানান, মাদরাসার দুই শিক্ষার্থীর মোবাইল না থাকায় তার মোবাইলে উপ বৃত্তির টাকা আসে। ওই টাকা নিয়ে এর আগেও একবার অভিযোগকারী সাবেক ইউপি সদস্য আ. ছত্তার তাকে নাজেহাল করেছে। বুধবার প্রকাশ্যে তাকে ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে নিয়ে জুতার মালা পড়িয়ে দেয়া হয়। তিনি এ ঘটনার পর লোকলজ্জায় ঘর থেকে বের হতে পাড়ছেন না।

এজেড এন বিডি ২৪/ শফি 

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© 2021, All rights reserved aznewsbd24