বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম:
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
রাজশাহীতে বেড়েছে লিচুর আবাদ, লাভবান চাষিরা

রাজশাহীতে বেড়েছে লিচুর আবাদ, লাভবান চাষিরা

অনলাইন ডেস্কঃ গত ছয় বছরে রাজশাহী জেলায় ৩৫ হেক্টর জমিতে বেড়েছে লিচুর আবাদ। উর্বর ভূমি আর অনুকূল আবহাওয়ার কারণে লিচু চাষিরা প্রতিবছর লাভবান হতে পারছেন।

শুক্রবার (২৪ জুন) এসব তথ্য ডেইলি বাংলাদেশকে নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের কৃষি তথ্য সেবার অতিরিক্ত উপ-পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ হিল কাফী।

তিনি বলেন, রাজশাহী অঞ্চলের ৯টি উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি লিচুর আবাদ হয় পবা, বাগমারা, তানোর, মোহনপুর, পুঠিয়া ও মতিহার এলাকায়। বাকি অন্যান্য উপজেলায় স্বল্প আকারে লিচুর বাগান রয়েছে। তবে সমসাময়িক বেশ কিছু উত্তরাঞ্চলে ফল চাষে লাভবান হচ্ছেন চাষিরা। আর তাই প্রতি বছর ক্রমান্বয়ে ধীরে ধীরে বাড়ছে লিচুর আবাদ।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রেমতে, ২০১৬-১৭ মৌসুমে জেলায় মোট লিচুর আবাদ হয়েছে ৪৮৯ হেক্টর জমিতে। এতে উৎপাদন হয়েছে ২ হাজার ৫১০ মেট্রিক টন। ওই বছর হেক্টর প্রতি ফলন হয়েছে ৫ দশমিক ১০ মেট্রিক টন। পরের বছর অর্থাৎ, ২০১৭-১৮ মৌসুমে এক একর বেড়ে মোট আবাদ দাঁড়ায় ৪৯০ হেক্টরে। ওই সময় মোট উৎপাদন হয় ২ হাজার ৮০৯ মেট্রিক টন অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় ২৯৯ মেট্রিক টন বেশি। তবে হেক্টর প্রতি ফলন দাঁড়ায় ৫ দশমিক ৭ মেট্রিক টনে।

২০১৮-১৯ মৌসুমে আবাদ বাড়ে আট হেক্টর জমিতে। মোট ৪৯৮ হেক্টর জমিতে আবাদ হয় ২ হাজার ৮৭৬ মেট্রিক টন। সে বছর হেক্টর প্রতি উৎপাদন ছিল ৫ দশমিক ৭৮ মেট্রিক টন।

২০১৯-২০ মৌসুমে লিচুর আবাদ আরও দুই হেক্টর বৃদ্ধি পেয়ে মোট ৫০০ হেক্টরে দাঁড়ায়। এতে মোট ফলন আসে ২ হাজার ৮৫৮ মেট্রিক টন এবং হেক্টর প্রতি ফলন হয় ৫ দশমিক ৭২ মেট্রিক টন। অপরদিকে ২০২০-২১ মৌসুমে ১৯ হেক্টর জমিতে লিচুর আবাদ বৃদ্ধি পেয়ে মোট আবাদ দাঁড়ায় ৫১৯ হেক্টর। ওই বছরে মোট উৎপাদন হয় ৩ হাজার ৩৬ মেট্রিক টন। হেক্টর প্রতি গড় ফলন আসে ৫ দশমিক ৮৫ মেট্রিক টন।

চলতি মৌসুমে রাজশাহী জেলায় আর পাঁচ হেক্টর জমিতে আবাদ বেড়ে মোট লিচুর আবাদি জমি দাঁড়ায় ৫২৪ হেক্টর। তবে গত ২০১৬-১৭ মৌসুম থেকে ২০২১-২২ মৌসুম পর্যন্ত মোট আবাদ পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, প্রতি বছর গড়ে ৫ দশমিক ৮৩ হেক্টর জমিতে বেড়েছে লিচুর আবাদ। সেক্ষেত্রে রাজশাহী জেলায় উৎপাদনও তুলনামূলকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।

এদিকে, চলতি মৌসুমে হেক্টর প্রতি ফলন আশা করা হচ্ছে ৬ মেট্রিক টন। চলতি মৌসুমে ৩ হাজার ১৪৪ মেট্রিক টন সাম্ভব্য ফলন আশা করা হলেও এর চেয়ে অধিক ফলন হবে বলে আশা প্রকাশ করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

চারঘাট উপজেলার মাসুম আলী জানান, বাপ-দাদার পাওয়া ১৫ বিঘা জমিতে আগে ধান ও গমের সঙ্গে শাক-সবজির আবাদ করতাম। তবে এসব ফসলে লাভ কম হয়। তাই সাথী ফসল হিসেবে বছর সাতেক আগে জমিতে লিচুর গাছ লাগাই। এখন এসব গাছ থেকে প্রতি বছর লাখ টাকার উপার্জন হচ্ছে। পাশাপাশি অন্যান্য ফসলও আবাদ করতে পারছি।

নগরীর নওদাপাড়া এলাকার মো. ইরান আলী। করেন মৌসুমী ফলের ব্যবসা। আম লিচুর মৌসুমে বাগান ঘুরে ঘুরে আম-লিচু সংগ্রহ করে দেশের বিভিন্ন স্থানের গ্রাহকের কাছে পাঠান।

লিচুর বিষয়ে তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পেশাগত কারণে রাজশাহীর বিভিন্ন উপজেলায় ঘুরতে হয় ফল সংগ্রহের জন্য। গেল কয়েক বছরের তুলনায় এবার রাজশাহী অঞ্চলে লিচুর বাগান অনেক চোখে পড়ছে। আবার অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার লিচুর আবাদও হয়েছে, যা গত বছর পাঁচেক আগেও রাজশাহীতে ছিল না।

এজেড এন বিডি ২৪/ রেজা

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© 2021, All rights reserved aznewsbd24