রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ০৯:২৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম:
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
বিয়ের অনুষ্ঠানে মেয়েদের সাথে কথা বলায় মাথা ন্যাড়া করা হল দুই যুবকের

বিয়ের অনুষ্ঠানে মেয়েদের সাথে কথা বলায় মাথা ন্যাড়া করা হল দুই যুবকের

অনলাইন ডেস্কঃ পটুয়াখালীর গলাচিপায় বিয়ে বাড়িতে মেয়েদের সাথে কথা বলার অপরাধে শালিস বৈঠকে বরপক্ষের দুই যুবকের মাথা ন্যাড়া করে আলকাতরা লাগিয়ে গ্রাম ছাড়া করার অভিযোগ উঠেছে চর বিশ্বাস ইউনিয়ন পরিষদের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. সায়েম গাজীর বিরুদ্ধে। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসলেও ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার দুপুরে।

এদিকে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার না পেলে আত্মহত্যার হুমকিও দিয়েছে ওই দুই যুবক। জানা যায়, গত মঙ্গলবার জেলার মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ চর গলাচিপা উপজেলার চরবিশ্বাস ইউনিয়নের চর বাংলা গ্রামের বাসিন্দা তাহিদুল মৃধার সাথে চর আগস্তির নূর সরদারের মেয়ে মুক্তা’র বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে বরযাত্রী হিসেবে যায় ওই দুই যুবক। চর মহিউদ্দিন নোমর স্লুইসগেট বাজার সংলগ্ন আবাসনে বিবাহ অনুষ্ঠান শেষে দুপুরে বরযাত্রীদের খাবার খাওয়ানো হয়। খাবার পরে একই গ্রামের মন্টু প্যাদার মেয়ে রুপার সাথে রাস্তায় দাড়িয়ে কথা বলেন তারা।

ভুক্তভোগীরা বলেন, আমরা বেয়াইন সম্পর্কের এক মেয়ের সাথে কথা বলছিলাম। বিয়ে বাড়ির লোকজনের মধ্যে বিষয়টি জানাজানি হলে মেয়ের আপন ভাই মো. সাইদুল ইসলাম ও স্থানীয় জনসাধারণসহ আমাদের মারধর করে। পরে ধরে নিয়ে যায় ৮নং ওয়ার্ডের স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. সায়েম গাজীর অস্থায়ী কার্যালয় স্লুইসগেট বাজারে। পরে জনসম্মুখে আমাদের গালাগাল করে ইউপি সদস্য সায়েম গাজী তার লোকজনকে খুড় আনতে বলে। সায়েম গাজীর নির্দেশে মো. হযরত মাঝি ও হাদী হাওলাদার মিলে আমাদের মাথা ন্যাড়া করে আলকাতরা দিয়ে দেয়।

এ বিষয়ে জানতে ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. সায়েম গাজীর ব্যবহৃত মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। একই ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. হাসান সরদার বলেন, বিয়ে বাড়িতে বরযাত্রী গেলে মেয়েদের সাথে কথা বলতেই পারে। তাই একজন ইউপি সদস্য কিভাবে জনসম্মুখে দুইজন যুবকের মাথা কামিয়ে দেয়। এটা কোন ধরনের আইন আমার জানা নেই। অভিযুক্তদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি করছি এবং এ ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি এম আর শওকত আনোয়ার ইসলাম বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। এটা তারা কোনোভাবেই করতে পারে না। এটা অন্যায়। ভুক্তভোগীদের সাথে কথা হয়েছে। তবে এখনও কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এজেড এন বিডি ২৪/ রেজা

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© 2021, All rights reserved aznewsbd24