বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ১১:২২ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম:
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল চালুর আগেই গড়ে উঠেছে অর্ধশতাধিক ক্লিনিক

শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল চালুর আগেই গড়ে উঠেছে অর্ধশতাধিক ক্লিনিক

এই হাসপাতালের দুই পাশের সাবালিয়া ও কোদালিয়া আবাসিক এলাকা চিকিৎসা-বাণিজ্য এলাকায় পরিণত হয়েছে।

শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল চত্বরে মেডিকেল কলেজের একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর ওই চত্বরেই ১৫ তলাবিশিষ্ট ৫০০ শয্যার মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভবনের নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০১৬ সালে। প্রায় পৌনে ২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে এই ভবনের নির্মাণকাজ শুরু হওয়ার পর থেকেই হাসপাতালের আশপাশে বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিক ও রোগনির্ণয় কেন্দ্র স্থাপন শুরু হয়। হাসপাতাল ভবনের দক্ষিণ পাশের সাবালিয়া এবং উত্তর পাশে কোদালিয়ায় একের পর এক ক্লিনিক চালু হয়। এলাকাটি এখন ক্লিনিকপাড়ায় রূপ নিয়েছে।

গত শনিবার হাসপাতালের এলাকায় ঘুরে দেখা যায়, এর আধা বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে গড়ে উঠেছে ৫৬টি ক্লিনিক ও রোগনির্ণয় কেন্দ্র। এ ছাড়া শতাধিক ওষুধের দোকান। এ সময় স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, এগুলোর ৯০ ভাগ গড়ে উঠেছে মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভবন নির্মাণ শুরু হওয়ার পর গত দুই-তিন বছরে। কয়েকজন ক্লিনিকমালিক জানান, এখানে ক্লিনিক চালুর পর থেকে তাঁদের বেশির ভাগ লোকসান গুনতে হচ্ছে। হাসপাতাল চালু হলে প্রচুর রোগীর সমাগম হবে। তখন তাঁদের ক্লিনিকগুলো লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে, এ আশাতেই বসে আসেন।

হাসপাতালের উত্তর পাশে সাবালিয়া এলাকার বাসিন্দা খন্দকার আতাউল হক জানান, কয়েক বছর ধরে এ এলাকায় বাসাভাড়া নিয়ে অনেক ক্লিনিক হচ্ছে। এতে এ এলাকায় বাসাভাড়া অনেক বেড়ে গেছে। তিন বছর আগে যে বাসা ১০ হাজার টাকা ভাড়া ছিল, এখন সে বাসার ভাড়া ৪০ হাজার টাকা।

এদিকে হাসপাতাল ঘিরে এত বেশি ক্লিনিক ও রোগনির্ণয় কেন্দ্র গড়ে ওঠার বিষয়টিকে ভালোভাবে দেখছে না নাগরিক সমাজ এবং ক্লিনিক ব্যবসায়ী সমিতি। তাদের অভিমত, এসব ক্লিনিকের মালিক রোগী আনার জন্য হাসপাতালে দালাল নিয়োগ করবেন।

সরকারি এম এম আলী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ শিক্ষাবিদ শামছুল হুদা জানান, হাসপাতালটিতে চিকিৎসা নিতে এসে দালাল চক্রের খপ্পরে পড়ে রোগীরা ক্লিনিকে যেতে যাতে বাধ্য না হন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের শুরুতেই সে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

টাঙ্গাইল জেলা ক্লিনিক মালিক সমিতির সভাপতি এম শিবলী সাদিক জানান, ব্যাঙের ছাতার মতো হাসপাতালের চারপাশে ক্লিনিক গড়ে উঠছে। এদের প্রভাবে হাসপাতালের চিকিৎসাসেবার পরিবেশ নষ্ট হবে। শুরু থেকেই এগুলো নিয়ন্ত্রণ করা প্রয়োজন।

টাঙ্গাইল রোগী কল্যাণ সমিতির সদস্য এলেন মল্লিক জানান, হাসপাতালটিতে দালাল চক্র যাতে প্রভাব বিস্তার করতে না পারে, সে জন্য শুরু থেকে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

৫০০ শয্যাবিশিষ্ট শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরিচালক মোহাম্মদ আলী জানান, হাসপাতালটির বহির্বিভাগে সেবা প্রদান শুরু হয়েছে। আগামী জুন মাসের তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যেই এই হাসপাতালের কার্যক্রম উদ্বোধন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। মানুষ যাতে এখানে এসে কোনো হয়রানির শিকার না হয়ে সেবা গ্রহণ করতে পারে, সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এজেড এন বিডি ২৪/ রেজা

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© 2021, All rights reserved aznewsbd24