সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৫৬ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্বের বাধ্যবাধকতা তুলে নিল সৌদি নুসরাতের মামলা: অসংলগ্ন অনুমান আর কল্পনা মানুষের জীবনের থেকেও কি ধর্ম বড়, প্রশ্ন শ্রীলেখার স্ত্রীকে রেখে দশম শ্রেণির ছাত্রীকে বিয়ে করলেন শিক্ষক হাতির পিঠে চড়ে মনোনয়ন জমা সনাতন ধর্মাবলম্বীর সৎকারে এগিয়ে এলো মুসলিমরা আবারও বাড়ছে ভোজ্যতেলের দাম বগুড়ার অপু বিশ্বাস যেভাবে সিনেমার নায়িকা হলেন শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন আজ স্কটল্যান্ডের কাছে হেরে বিশ্বকাপ শুরু বাংলাদেশের বাংলাদেশের সামনে চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য ছুঁড়ে দিল স্কটল্যান্ড মালিঙ্গাকে পেছনে ফেলে বিশ্ব রেকর্ড সাকিবের কাপাসিয়ায় ১১ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ৫০ জন লক্ষ্মীপুরে ৪ ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে ২৮ জনের মনোনয়নপত্র দাখিল বাংলাদেশের দাপুটে বোলিংয়ে কোণঠাসা স্কটল্যান্ড
২২ বছর পর নিখোঁজ মাকে পেয়ে আনন্দে সন্তানরা

২২ বছর পর নিখোঁজ মাকে পেয়ে আনন্দে সন্তানরা

অনলাইন ডেস্কঃ বগুড়ার ধুনট উপজেলায় দীর্ঘ ২২ বছর পর নিখোঁজ মাকে খুঁজে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা সন্তানরা। ঢাকা থেকে সোমবার রাতে ফিরেছেন তারা। মধ্যরাত পর্যন্ত ধুনট উপজেলার নিজ গ্রামে বৃদ্ধা আমেনাকে একনজর দেখার জন্য শত শত মানুষ ভিড় করে। বাড়ি ফিরে পুত্রবধূর রান্না করা খাসির মাংস দিয়ে ভাত খেয়েছেন। সকালে আমেনাকে দেখতে দূরদূরান্ত থেকে কয়েক শ মানুষ ভিড় করেন। গ্রামবাসী দীর্ঘদিন পর আমেনাকে দেখে চিনতে পারেন। ১৯৯৯ সালে অভিমান করে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান তিনি। এরপর তার আর খোঁজ মেলেনি।

তার সন্তানরাও মাকে এত দিন মৃতই জানতেন। তাই তাদের জাতীয় পরিচয়পত্রেও ‘মৃত’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। সন্ধান পাওয়ার পর নেপাল থেকে দীর্ঘ ২২ বছর পর নিজ বাড়িতে ফিরে আসেন আমেনা। তবে এখন তার বয়স প্রায় ৮০ বছর। তার বাড়ি ধুনট উপজেলার নিমগাছি ইউনিয়নের মাজবাড়ী গ্রামে। বাংলাদেশ দূতাবাসের সহযোগিতায় সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে নেপাল থেকে ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছেন আমেনা বেগম। আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাকে স্বজনদের জিম্মায় দেওয়া হয়েছে। সোমবার রাতেই সন্তানদের সঙ্গে ধুনটের নিজ বাড়িতে ফিরে আসেন তিনি। বড় বোনের অপেক্ষায় ছিলেন ধুনটের ছোট চাপড়া গ্রামের আম্বিয়া। তিনি বলেন, ‘আল্লাহ সরকারের ভালো করুক। সরকারের কারণে এত বছর পর বোনকে ফিরে পেলাম।’

আমেনার বড় ছেলে আমজাদের ছেলে আদিলুর রহমান আদিল জানান, সরকারিভাবে তার দাদিকে তাদের পরিবারে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাদের কোনো টাকা খরচ হয়নি। সরকারের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, মানুষ মানুষের জন্য। তিনি আরও জানান, তার যখন আট বছর বয়স তখন তার দাদি নিখোঁজ হন।

দাদি তাকে না চিনলেও দাদিকে তিনি চিনতে পেরেছেন। আমেনা বেগমের ছেলে ফটিক বলেন, ‘ভেবেছিলাম মা মারা গেছেন। এত দিন পর মাকে পেলাম। এর চেয়ে বড় খুশি আর কী হতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘সরকার দূতাবাসের মাধ্যমে সোমবার দুপুর ১টায় ঢাকা বিমানবন্দরে নিয়ে আসে আমার মাকে। ডিজিটাল বাংলাদেশ না হলে মাকে খুঁজে পেতাম না। ফেসবুকের সুবাদে খুঁজে পেলাম। শুক্রবারও ভিডিওকলে মার সঙ্গে কথা হয়। সেখানে নেপালি অধিবাসীও ছিল।’ ভিডিওকলে আশ্রয়দাতা নেপালিদের ধন্যবাদও জানানো হয়।

আমেনার বড় ছেলে আমজাদ হোসেনের স্ত্রী ফাতেমা বেগম বলেন, ‘আমার শাশুড়ি মানসিক রোগী ছিলেন। পাগলের মতো ঘুরে বেড়াতেন। তাকে পাবনা মানসিক হাসপাতালে ভর্তিও করা হয়েছিল।’

ছোট ছেলে ফরাইজুল বলেন, ‘হঠাৎ করেই গত জুনে খবর আসে মা বেঁচে আছেন। নেপালের সানসুরি জেলার ইনারুয়া পৌরসভা এলাকায় তার সন্ধান মিলেছে। এরপর ভিডিওকলে মার সঙ্গে কথা হয়। পরে বাংলাদেশ দূতাবাস কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় মাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। মাকে ফিরে পেয়ে মনে হচ্ছে জান্নাতের সুখ পেয়েছি।’

এজেড এন বিডি ২৪/হাসান

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x