সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৩:১৬ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
করোনায় প্রাণ হারালেন আরও ৪ জন সেই বিচারকের ভুল ছবি দিয়ে তসলিমার টুইট সিডরে ভেসে যাওয়া সেই রিয়া এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী বিশ্বকাপে কোন দল কত টাকা পেল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কতটি ছক্কা হাঁকিয়েছেন ছক্কার রাজা পরিবহণ ধর্মঘট বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ডাকা বৈঠক হঠাৎ স্থগিত আফগানরা না জিতলে কী করবে ভারত, জানালেন জাদেজা শেষ দুই বলের ছক্কায় উইন্ডিজের সংগ্রহ ১৫৭ বিদায় ইউনিভার্স বস মোশাররফ করিমের সঙ্গী হচ্ছেন পার্নো মিত্র ‘জীবনটা কফির মতো’ দাবি না মানলে ধর্মঘট চলবে চট্টগ্রামে পরিবহণ ধর্মঘট প্রত্যাহার পুরো কুরআনের ক্যালিগ্রাফি এঁকে প্রশংসায় ভাসছেন তরুণী দুবাইয়ে বাংলাদেশের পতাকার ফেরিওয়ালা তিনি
শহরটা আমাদের ,সাজিয়ে তুলতে হবে আমাদেরকেই; চসিক মেয়র

শহরটা আমাদের ,সাজিয়ে তুলতে হবে আমাদেরকেই; চসিক মেয়র

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, ‘নগরীর সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে সমন্বয়, পারস্পারিক সহযোগিতা অত্যন্ত জরুরি। সমন্বয় ব্যতীত এই নগর নিরাপদ ও বাসযোগ্য শহর হিসেবে গড়ে তোলা অসম্ভব।’ বুধবার দুপুরে জাইকার অর্থায়নে পরিচালিত সিটি গভর্নেন্স প্রকল্পের অধীনে ‘সিভিল সোসাইটি কো-অর্ডিনেশন কমিটির ১৬তম সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

সভায় উপস্থিত ছিলেন চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, সচিব মোহাম্মদ আবু শাহেদ চৌধুরী, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমদ, চিটাগাং চেম্বারের সাবেক পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, আইইবি’র কেন্দ্রীয় কাউন্সিল সদস্য প্রকৌশলী এম এ রশিদ, প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার, প্রকৌশলী মো. হারুন, সাংবাদিক এম নাসিরুল হক, এডিসি মোহাম্মদ হাসান চৌধুরী, সিডিএ’র প্রধান পরিকল্পনাবিদ স্থপতি মোহাম্মদ শাহিনুল ইসলাম খান, চট্টগ্রাম ওমেন চেম্বারের পরিচালক রেখা আলম প্রমুখ।

সিটি মেয়র বলেন, ‘শহরটা আমাদের। আমাদের শহরকে আমাদেরকেই সাজিয়ে তুলতে হবে। আলাপ-আলোচনার মধ্যে সীমাবদ্ধতা নয়, বাস্তবায়নের প্রয়োগটা নিশ্চিত করতে হবে। প্রকল্প বাস্তবায়নের পর তা দেখভালের সক্ষমতাও থাকতে হবে। মানুষের সক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে সকল ক্ষেত্রে নগরবাসীর প্রত্যাশাও অনেকগুণ বেড়েছে। এতে শহরে আধুনিকমানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেমন বেড়েছে, তেমনি বেড়েছে অত্যাধুনিক ক্লিনিক, আবাসন ব্যবস্থা। সবকিছুর পরিবর্তন হলেও শহরের পরিধি বাড়েনি। আগে যতটুকু ছিল এখনো সেই অবস্থায় রয়েছে এ শহর।’

মেয়র বলেন, ‘যানজটে নগরবাসীর ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা। নগরে ট্রাফিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। যেখানে যাই সেখানেই যানজট আর যানজট। এই অবস্থায় নগরবাসী যাবে কোথায়। এ অবস্থার উত্তরণ ঘটাতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহকে পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘শহরে ভিন্ন ভিন্ন প্রকৃতির গাড়ী চলাচল করে। তাদের যাত্রী সাধারণ যেসব স্থানে নামবে, সেই সব স্থানে কোনো পার্কিং ব্যবস্থা নেই। এটাতো আধুনিক নগরের পর্যায়ে পড়ে না। অথচ আমরা এই চট্টগ্রামকে তিলোত্তমা নগরী এবং প্রচ্যের রাণী হিসেবে অভিষিক্ত করেছি, এখনো করছি। তাই যানবাহনে শৃঙ্খলা আনতে শহরে কত ধরনের যানবাহন চলাচল করে তার আকার-আকৃতি-প্রকৃতি নির্ণয় করতে হবে। সেই সব যানবাহনের পার্কিং ব্যবস্থার জন্য সেবা সংস্থাদের মধ্যে সমন্বয় সাধন অতীব জরুরি। এক্ষেত্রে চসিক, সিডিএ এবং ট্রাফিক বিভাগকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে।’

এজেড এন বিডি ২৪/ শেমল

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x