বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৫ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
পুলিশ সুপারের দায়িত্বে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী মাহিরা জোর করে বিয়ে দেওয়ায় বরের মামলায় কনেসহ ৯ জন জেলে ৫০ রানের জুটি গড়ে ফিরলেন লিটন লিটনের পর ফিরলেন মুশফিক এবার ফরিদপুর ও বরিশালে পদ্মাপূরাণ, থাকছে ঢাকায়ও যে নামে হতে পারে কুমিল্লা ও ফরিদপুর বিভাগ চুল পড়া বন্ধের দুর্দান্ত উপায় সাকিব-লিটনের ব্যাটে এগোচ্ছে বাংলাদেশ ৪ জাতি টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের কোচ আবাহনীর লেমোস দলের প্রয়োজনে সড়ে দাঁড়াবেন মরগান করোনায় আরও ১০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৩ অষ্টগ্রামের পনিরের কদর এখন সর্বত্র খুলনায় মাদক মামলায় ২ জনের যাবজ্জীবন নিজ দলেই বিতর্কিত তারেক, শঙ্কা ভবিষ্যৎ নিয়ে দেশে ডিজিটাল ডিভাইস উৎপাদনের যাত্রা শুরু হয়েছে: টেলিযোগাযোগমন্ত্রী
যেভাবে টানা ২৯ বছর পালিয়ে ছিলেন যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আজাদ

যেভাবে টানা ২৯ বছর পালিয়ে ছিলেন যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আজাদ

অনলাইন ডেস্কঃ ২৯ বছর আগে ১৯৯২ সালের ২৪ জুন রাতে রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানার গুটিবাড়ী সরকারপাড়া এলাকায় জায়গা-জমির বিরোধে পূর্বশত্রুতার জেরে পরিকল্পিতভাবে খুন হন ইব্রাহিম ওরফে ইব্রা। ওই ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলার অন্যতম আসামি আবুল কালাম আজাদ। তিনি গ্রেফতার এড়াতে বাড়ি ছাড়েন। বিভিন্ন নির্মাণাধীন ভবনে নির্মাণশ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। সর্বশেষ তিনি রাজধানীর মিরপুরের আহম্মেদনগরে একটি নির্মাণাধীন ভবনে কাজ করছিলেন।

শুধু তাই নয়, বদলে ফেলেন নিজের নাম-পরিচয়। রংপুর থেকে পালিয়ে ঢাকায় চলে আসার পর নিজেকে আড়াল করার জন্য আজাদ মিয়া নাম পাল্টে মিরপুর থানার আহম্মেদনগরকে বর্তমান ঠিকানা হিসেবে ব্যবহার করে নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করেন তিনি। তবে ২৯ বছর পালিয়ে থাকার পর শেষ পর্যন্ত তিনি ধরা পড়েছেন র‌্যাবের হাতে। আবুল কালাম আজাদকে রাজধানীর মিরপুরের পাইকপাড়া থেকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৪ এর একটি দল।

সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক (সিও) অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, ২৯ বছর আগে ১৯৯২ সালের ২৪ জুন রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাজার থেকে ফেরার পথে রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানার গুটিবাড়ী সরকারপাড়া এলাকায় খুন হন ভিকটিম মো. ইব্রাহিম ওরফে ইব্রা। জায়গা-জমি সংক্রান্ত বিরোধ ও পূর্বশত্রুতার জেরে পরিকল্পিতভাবে কয়েকজন মিলে দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে গুরুতরভাবে আঘাত করে মুমূর্ষু অবস্থায় রাস্তার পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন মারা যান ইব্রাহিম।

ইব্রাহিমের বড় ভাই মফিজ উদ্দিন মিঠাপুকুর থানায় আবুল কালাম আজাদসহ ছয়জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। ওই মামলার তদন্ত শেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার আবুল কালাম আজাদসহ এজহারনামীয় তিনজনের বিরুদ্ধে আদালতে একই বছর ডিসেম্বর মাসে অভিযোগপত্র দাখিল করেন ও এজাহারনামীয় বাকি তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় অভিযোগপত্র থেকে অব্যাহতি দেন।

পরবর্তী অভিযোগপত্রের ভিত্তিতে রংপুরের অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত মামলার বিচারকার্য পরিচালনা করেন এবং সাক্ষ্য-প্রমাণ ও উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে ইব্রাহিম হত্যাকাণ্ডে সরাসরি সম্পৃক্ত থাকার অপরাধে চার্জশিটে অভিযুক্ত তিনজনকে ২০০৩ সালের ১৩ এপ্রিল যাবজ্জীবন সাজা দেন।

রায় ঘোষণার সময় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ফারাজ উদ্দিন (৫০) গ্রেফতার থাকলেও সাজাপ্রাপ্ত অন্য দুই আসামি আবু ডাকাত ও আবুল কালাম আজাদ পলাতক ছিলেন। পরে আবু ওরফে আবু ডাকাত গ্রেফতার হলেও আবুল কালাম আজাদ ছিলেন অধরা। আজাদকে গ্রেফতারে সংশ্লিষ্ট থানা চিঠি পাঠালে র‌্যাব-৪ আজাদকে গ্রেফতারে গোয়েন্দা নজরদারি শুরু করে। সর্বশেষ সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) ভোরে মিরপুর পাইকপাড়া আহম্মেদনগর এলাকা থেকে আজাদকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৪ এর একটি দল।

অতিরিক্ত ডিআইজি মোজাম্মেল হক বলেন, আবুল কালাম আজাদ মা-বাবার একমাত্র সন্তান। তিনি ১৯৮৭ সালে দাখিল, ১৯৮৯ সালে আলিম, ১৯৯১ ফাজিল পাস করেন। শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও হত্যা মামলার আসামি হওয়ায় টানা ২৯ বছর পালিয়ে কাটিয়ে দেন। ২০০৭ সালে আসামি নাম-পরিচয় গোপন করে তার পার্শ্ববর্তী বদরগঞ্জ থানার বাতাসন গ্রামে সাবানা (১৯) নামে একটি মেয়েকে বিয়ে করেন। হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি জানায় স্ত্রীর সঙ্গেও তার ছয় মাস পরেই বিচ্ছেদ ঘটে।

১৯৯২ সালে মামলা হওয়ার পর থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত তিনি রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জায়গায় আত্মগোপনে ছিলেন। পরিচিত লোকজন থেকে নিজেকে আড়াল করে রাখতে ২০০১ সালে ঢাকায় আসেন। ২০০১ সাল থেকে গ্রেফতারের আগে তিনি ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপন করেন। বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন কনস্ট্রাকশন বিল্ডিংয়ে নির্মাণশ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। সর্বশেষ তিনি মিরপুরের আহম্মেদনগরের একটি নির্মাণাধীন ভবনে কাজ করছিলেন।

গ্রেফতার এড়াতে নতুন নামে জাতীয় পরিচয়পত্র

নিজেকে আড়াল করার জন্য আজাদ মিয়া নাম ধারণ করে মিরপুর থানাধীন আহম্মেদনগরকে বর্তমান ঠিকানা হিসেবে ব্যবহার করে জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করেন। স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে রংপুর, মিঠাপুকুর ও গ্রাম গুটিবাড়ী কবিরাজ পাড়া ব্যবহার করেন।

এজেড এন বিডি ২৪/ রামিম

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x