বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৪৯ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
যে নামে হতে পারে কুমিল্লা ও ফরিদপুর বিভাগ চুল পড়া বন্ধের দুর্দান্ত উপায় সাকিব-লিটনের ব্যাটে এগোচ্ছে বাংলাদেশ ৪ জাতি টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের কোচ আবাহনীর লেমোস দলের প্রয়োজনে সড়ে দাঁড়াবেন মরগান করোনায় আরও ১০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৩ অষ্টগ্রামের পনিরের কদর এখন সর্বত্র খুলনায় মাদক মামলায় ২ জনের যাবজ্জীবন নিজ দলেই বিতর্কিত তারেক, শঙ্কা ভবিষ্যৎ নিয়ে দেশে ডিজিটাল ডিভাইস উৎপাদনের যাত্রা শুরু হয়েছে: টেলিযোগাযোগমন্ত্রী সুন্দরবন সুরক্ষায় স্ট্র্যাটেজিক এনভায়রনমেন্টাল ম্যানেজমেন্ট প্ল্যান করা হয়েছে: পরিবেশমন্ত্রী ‘রপ্তানি বাণিজ্য গতিশীল করতে বিভিন্ন ধরনের মেলার বিকল্প নেই’ ডিএমপির ৭ ইন্সপেক্টরকে বদলি জন্মদিনে ধরা দেবেন ‘লাল-সাদা’ পরী, আমন্ত্রণ তালিকায় কারা? ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলায় বাংলাদেশের অংশগ্রহণ তাৎপর্যপূর্ণ: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী
যাত্রীবেশে বাসে উঠে চালককে খুনের পর ডাকাতি

যাত্রীবেশে বাসে উঠে চালককে খুনের পর ডাকাতি

অনলাইন ডেস্কঃ রাতে রাজধানীর বিভিন্ন বাস কাউন্টার থেকে যাত্রীবেশে দূরপাল্লার বাসের টিকেট সংগ্রহ করতো। পরে সেই বাসে উঠে নির্জন এলাকায় পৌঁছে বাসচালককে ধারালো ছুড়ি দেখিয়ে বাসের নিয়ন্ত্রণ নিতো। এরপর বাসে থাকা যাত্রীদের কাছ থেকে লুটে নিতো মূল্যবান জিনিসপত্র। দীর্ঘদিন বাসে যাত্রীবেশে ডাকাতি করে আসা এমনই এক চক্রের ছয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব)।

র‌্যাব জানিয়েছে, চক্রটি হানিফ পরিবহন, শ্যামলী পরিবহন, রত্না স্পেশাল, সিটিবাড়ি স্পেশাল, সৈকত পরিবহনসহ একাধিক বাসে ডাকাতি করে আসছিল। গত ৩১ আগস্ট রাতে যাত্রীবেশে রাজধানীর গাবতলী থেকে ছেড়ে যাওয়া হানিফ পরিবহনের একটি বাসে উঠেন ডাকাতদলের সদস্যরা। রাত ৩টার দিকে ধাপেরহাট এলাকায় পৌঁছুলে বাসটির নিয়ন্ত্রণ নেয় তারা। এরপর ছুরিকাঘাতে বাসের চালক মনজুর হোসেনকে (৫৫) হত্যা করে চক্রটি।

চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বাসের সুপারভাইজার মো. পইমুল ইসলাম বাদী হয়ে রংপুর জেলার পীরগঞ্জ থানায় একটি মামলা করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে র‌্যাব-১ ও র‌্যাব-১৩ এর আভিযানিক দল রাজধানীর অদূরে আশুলিয়া ও গাইবান্ধায় অভিযান পরিচালনা করে বাসচালককে হত্যাসহ ডাকাতির সঙ্গে সরাসরি জড়িত চক্রের ৬ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতাররা হলেন- নয়ন চন্দ্র রায় (২২), মো. রিয়াজুল ইসলাম লালু (২২), মো. ওমর ফারুক (১৯), মো. ফিরোজ কবির (২০), আবু সাঈদ মোল্লা (২৫) ও শাকিল মিয়া (২৬)। এসময় তাদের কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিসহ ৫টি ছুরি, লুট করা একটি মোবাইল ফোন ও তাদের ব্যবহৃত ৫টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, ‘গত ৩১ আগস্ট রাতে ঢাকা হতে পঞ্চগড়ের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া হানিফ পরিবহণের একটি বাস রংপুর জেলার পীরগঞ্জ এলাকায় পৌঁছুলে দুর্ধর্ষ ডাকাতির কবলে পড়ে। ওই বাসে যাত্রীবেশী ডাকাত দলের সদস্যদের ছুরিকাঘাতে বাসের চালক মনজুর হোসেন গুরুতর আহত হযন এবং পরে মারা যান। এ ঘটনায় বাসের সুপারভাইজার মো. পইমুল ইসলাম বাদী হয়ে রংপুর জেলার পীরগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন। ঘটনাটি সারাদেশে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে এবং বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে গুরুত্বের সঙ্গে খবরটি প্রচার হয়। এ চাঞ্চল্যকর হত্যাসহ ডাকাতির পরিপ্রেক্ষিতে র‌্যাব-১ তাৎক্ষণিকভাবে হত্যাকারী ডাকাত দলের সদস্যদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনতে দ্রুততার সঙ্গে ছায়া তদন্ত শুরু করে ও গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ায়। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) র‌্যাব-১ ও র‌্যাব-১৩ আভিযানিক দল রাজধানীর অদূরে আশুলিয়া ও গাইবান্ধায় অভিযান পরিচালনা করে বাসচালক হত্যাসহ ডাকাতির সঙ্গে সরাসরি জড়িত ৬ জনকে গ্রেফতার করে।’

খন্দকার আল মঈন বলেন, ‘গত ৩১ আগস্ট রাত ৮টার দিকে হানিফ পরিবহণের একটি নন-এসি বাস (ঢাকা মেট্রো-গ-১৫-৩৮১০) ঢাকা হতে পঞ্চগড়ের উদ্দেশ্যে গাবতলী ছেড়ে যায়। বাসটি সাভারে পৌঁছুলে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ডাকাত দলের তিনজন (রিয়াজুল ইসলাম ওরফে লালু, আবু সাঈদ মোল্লা ও অপর একজন) এবং নবীনগর পৌঁছুলে ডাকাত দলের আরও তিনজন (শ্রী নয়ন চন্দ্র রায়, ওমর ফারুক ও ফিরোজ কবির) যাত্রীবেশে বাসে ওঠে। রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে বাসটি গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার বিটিসি মোড় অতিক্রম করার পর বাসে যাত্রীবেশে থাকা ডাকাত দলের সদস্যরা ডাকাতির উদ্দেশ্যে বাসটি তাদের নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা করে। প্রথমে তারা বাসের চালক মনজুর হোসেনকে ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করে। এসময় চালক বাসটি ঘুরিয়ে আনার চেষ্টা করলে তারা আবার চালকের কাঁধে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে বাসটির নিয়ন্ত্রণ নেয়। এরপর ডাকাত দলের সদস্য রিয়াজুল ইসলাম ওরফে লালু বাসটি চালাতে থাকে ও দলের অন্য সদস্যরা বাসে লুটপাট করতে করতে রংপুরের শটিবাড়ীস্থ ভাবনা ফিলিং স্টেশনে ইউটার্ন করে আবার উল্টো পথে রওয়ানা করে।’

তিন জানান, পলাশবাড়ী পৌঁছার আগে ডাকাতেরা ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে পীরগঞ্জের চম্পাগঞ্জ হাইস্কুলের সামনে রাত ৩টার দিকে যাত্রীসহ বাসটি রেখে পালিয়ে যায়। এসময় ডাকাতরা যাত্রীদের মুঠোফোন ও নগদ ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা লুট করে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে গুরুতর আহত অবস্থায় বাসচালক মনজুর হোসেনকে পলাশবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কতর্ব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

গ্রেফতারদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‌্যাবের এ মিডিয়া উইং কর্মকর্তা বলেন, ‘তারা একটি সংঘবদ্ধ ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য। দলটির সদস্য ১০ থেকে ১২ জন। গ্রেফতার নয়ন চন্দ্র রায় ডাকাত দলের মূলহোতা। সে ডাকাত দলটি নিয়ন্ত্রণ করতো। দলের সদস্যরা দীর্ঘদিন উত্তরবঙ্গগামী বাসে সাধারণ যাত্রীবেশে উঠে ডাকাতি করে আসছিল। তারা গত বছরের ডিসেম্বর থেকে এখন পর্যন্ত ৭ থেকে ৮টি বাসে ডাকাতি করেছে। ইতোপূর্বে ডাকাত চক্রটি পলাশবাড়ী থেকে পীরগঞ্জ ৪৮ কিলোমিটার এলাকায় গত বছরের ১৮ ডিসেম্বর রত্না স্পেশাল, ১ জানুয়ারি সিটিবাড়ি স্পেশাল, ১২ জানুয়ারি সৈকত পরিবহন, ৮ মার্চ শ্যামলী পরিবহন, ৪ এপ্রিল জায়দা পরিবহন ও ১৯ আগস্ট ডিপজল পরিবহনে ডাকাতি করছে বলে স্বীকার করেছে। সাধারণত, তারা পলাশবাড়ি থেকে পীরগঞ্জ মহাসড়কের নির্জন এলাকা বাস ডাকাতির জন্য বেছে নেয়। ডাকাতি করার পর তারা ফের আশুলিয়ায় ফিরে আসতো।’

র‌্যাব জানিয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার নয়ন চন্দ্র জানান, সে চক্রের মূলহোতা। চক্রের অন্য সদস্যরা আশুলিয়ায় বিভিন্ন গার্মেন্টসে খণ্ডকালীন চাকুরি, ক্ষুদ্র ব্যবসা, অটোচালকসহ বিভিন্ন পেশায় জড়িত ছিল। গ্রেফতার শাকিলসহ আরও কয়েকজন সদস্য গাইবান্ধায় বিভিন্ন পেশায় জড়িত। রিয়াজুল ইসলাম ওরফে লালু পেশায় ট্রাকচালক। সে তার অন্য সহযোগীদের সঙ্গে বাস ডাকাতির সময় বাসের চালকের পরিবর্তে নিজে বাস চালিয়ে ডাকাত সদস্যদের গন্তব্যে নিয়ে যেতো। শাকিল ডাকাতির স্থানে উপস্থিত থেকে তথ্য ও অন্যান্য সহায়তা প্রদান করতো। গ্রেফতার অন্য সদস্যরা সশরীরে ডাকাতিতে অংশ নিতো। গ্রেফতাররা একে অপরের যোগসাজশে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন বাসে সাধারণ যাত্রীবেশে উঠে ডাকাতি করে আসছিল।

সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার আল মঈন বলেন, ‘যাদের আমরা গ্রেফতার করেছি, তাদের বেশিরভাগের বাড়িই গাইবান্ধা ও রংপুর অঞ্চলে। পলাশবাড়ি-রংপুর-পীরগঞ্জ রুটের ৪৮ কিলোমিটার এলাকা সম্পর্কে ডাকাত দলের ভালো ধারণা ছিল। যে কারণে ডাকাতির জন্য এ এলাকাগুলো বেছে নিতো তারা। এসব রাস্তা কখন নিরিবিলি থাকে, সেটা জেনেই অধিকাংশ সময় তারা নাইট কোচে ডাকাতি করতো। চক্রটি দুটি স্পটে ওয়াচম্যান রাখতো। তাদের কাজ ছিল, রাস্তায় আশপাশের মানুষের আনাগোনা আছে কি-না বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা আছে কি-না, সেটা লক্ষ্য রাখা। এসব সড়কের কোথাও সিসিটিভি ক্যামেরা না থাকায় তাদের ধারণা ছিল, এখানে ডাকাতি করলে কেউ তাদের সনাক্ত করতে পারবে না।’

এসব সড়কে অপরাধ দমনে র‌্যাবের কোনো পদক্ষেপ আছে কি-না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘র‌্যাবের পাশাপাশি হাইওয়ে পুলিশ টহল দিয়ে থাকে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রতিনিয়ত বিভিন্ন গাড়ি বা যাত্রীদের চেক করে থাকে। আমরা তাদের নজরদারির মধ্যে রেখেছি। এসব অপরাধীরা ডাকাতি দিন সন্ধ্যা থেকে বিভিন্ন সড়কে নজরদারি রাখতো। সুযোগ পেলেই তারা ডাকাতি করতো। যেহেতু পরিবহণ সেক্টর ও হাইওয়েতে ডাকাতি বেড়ে গেছে, আমরাও টহল জোরদার করেছি। হাইওয়ে পুলিশও নিশ্চয় তাদের টহল জোরদার করেছে।’

ডাকাতিকালে কী ধরনের অস্ত্র ব্যবহার করা হতো, জানতে চাইলে র‌্যাবের এ মিডিয়া উইং কর্মকর্তা বলেন, ‘ডাকাতরা বেশিরভাগ সময় ছুরি ব্যবহার করেছে। ছুরি ব্যবহার করেই সবশেষ ডাকাতি সম্পন্ন করেছে তারা।’

এজেড এন বিডি ২৪/হাসান

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x