সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০১:৫৮ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
করোনায় প্রাণ হারালেন আরও ৪ জন সেই বিচারকের ভুল ছবি দিয়ে তসলিমার টুইট সিডরে ভেসে যাওয়া সেই রিয়া এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী বিশ্বকাপে কোন দল কত টাকা পেল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কতটি ছক্কা হাঁকিয়েছেন ছক্কার রাজা পরিবহণ ধর্মঘট বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ডাকা বৈঠক হঠাৎ স্থগিত আফগানরা না জিতলে কী করবে ভারত, জানালেন জাদেজা শেষ দুই বলের ছক্কায় উইন্ডিজের সংগ্রহ ১৫৭ বিদায় ইউনিভার্স বস মোশাররফ করিমের সঙ্গী হচ্ছেন পার্নো মিত্র ‘জীবনটা কফির মতো’ দাবি না মানলে ধর্মঘট চলবে চট্টগ্রামে পরিবহণ ধর্মঘট প্রত্যাহার পুরো কুরআনের ক্যালিগ্রাফি এঁকে প্রশংসায় ভাসছেন তরুণী দুবাইয়ে বাংলাদেশের পতাকার ফেরিওয়ালা তিনি
ফেসবুক ব্যবহারকারীদের উদ্দেশ্যে জাকারবার্গের চিঠি

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের উদ্দেশ্যে জাকারবার্গের চিঠি

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক : জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম জায়ান্ট ফেসবুক ইনকরপোরেশন নিজেদের নাম পরিবর্তন করেছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ নতুন নাম ‘মেটা’ ঘোষণা করেন। মূলত ‘মেটাভার্স’-এর সংক্ষিপ্ত রূপই এই নামকরণ।

নতুন এই নামের মাধ্যমে মূলত ‘মেটাভার্স’ নামে একটি অনলাইন দুনিয়া তৈরির পরিকল্পনা উন্মোচন করেছেন মার্ক জাকারবার্গ। যেখানে মানুষ ভার্চুয়াল পরিবেশে ভিআর হেডসেট ব্যবহার করে বিভিন্ন কাজ করার পাশাপাশি, গেইম খেলা এবং যোগাযোগ করতে পারবে।

এছাড়া ফেসবুক ব্যবহারকারীদের উদ্দেশ্যে একটি দীর্ঘ চিঠি লিখেছেন জাকারবার্গ। সেটির মূলভাব নিচে তুলে ধরা হলো-

সহ–প্রতিষ্ঠাতার চিঠি, ২০২১

আমরা এমন একটি সময়ে আছি; যেটাতে ইন্টারনেট এবং আমাদের প্রতিষ্ঠান আরেকটি অধ্যায়ে পা রাখছে। সাম্প্রতিক দশকগুলোতে প্রযুক্তি মানুষকে আরও স্বাভাবিকভাবে সংযুক্ত করার ও নিজেদের প্রকাশ করার শক্তি দিয়েছে। আমি যখন ফেসবুক শুরু করি, বেশিরভাগ মানুষই ওয়েবসাইটে টেক্সট টাইপ করতাম। আমরা যখন ক্যামেরাসহ ফোন পেয়েছি, তখন ইন্টারনেট, মোবাইলফোন আরও বেশি ভিজ্যুয়াল হয়ে উঠেছে।

কানেকশনস্ দ্রুততর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ভিডিও অভিজ্ঞতা শেয়ার করার একটি সমৃদ্ধ পদ্ধতি হয়ে উঠেছে। আমরা ‘ডেস্কটপ টু ওয়েব টু মোবাইল’ কিংবা ‘টেক্সট টু ফটো টু ভিডিও’-তে চলে এসেছি।  কিন্তু এটাই শেষ নয়। পরবর্তী প্ল্যাটফর্মটি আরও বেশি গুরুত্ববহ।

আমরা এটিকে মেটাভার্স বলি; যেখানে থাকবে আমাদের পণ্য। মেটাভার্সের সংজ্ঞায়িত গুণটি হবে উপস্থিতির অনুভূতি- যেমন আপনি অন্য ব্যক্তি কিংবা ভিন্ন কোনো জায়গায় আছেন। অন্য ব্যক্তির সঙ্গে সত্যিকারের উপস্থিত বোধ করা সামাজিক প্রযুক্তির চূড়ান্ত স্বপ্ন। এ কারণেই আমরা এটি নির্মাণের দিকে মনোনিবেশ করছি।

ভবিষ্যতে অফিসে যাতায়াত ছাড়াই, বন্ধুদের সঙ্গে কনসার্টে বা আপনার বাবা-মায়ের বসার ঘরে থাকা অবস্থায় হলোগ্রাম হিসাবে তাৎক্ষণিকভাবে টেলিপোর্ট করতে সক্ষম হবেন। আপনি যেখানেই থাকুন না কেন মেটাভার্স আরও সুযোগ সৃষ্টি করবে। আপনি আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোতে আরও বেশি সময় ব্যয় করতে পারবেন। পাশাপাশি ট্র্যাফিক টাইম কমাতে ও আপনার কার্বন ব্যবহার কমাতে পারবেন।

আজ আপনার কতগুলো শারীরিক বিষয় ভবিষ্যতে হলোগ্রাম হতে পারে তা ভাবুন! টিভি, একাধিক মনিটরের সঙ্গে আপনার নিখুঁত কাজের সেটআপ; আপনার বোর্ড গেম এবং আরও অনেক কিছু কারখানায় একত্রিত শারীরিক জিনিসের পরিবর্তে সেগুলো হবে বিশ্বজুড়ে নির্মাতাদের দ্বারা ডিজাইন করা হলোগ্রাম। আপনি বিভিন্ন ডিভাইসে এই অভিজ্ঞতাগুলো পাবেন-এটাই পরিবর্ধিত বাস্তবতা।

ভৌত জগতে উপস্থিত থাকার জন্য চশমা, সম্পূর্ণরূপে নিমজ্জিত হওয়ার জন্য ভার্চুয়াল রিয়েলিটি এবং বিদ্যমান প্ল্যাটফর্ম থেকে জাম্প করতে প্রয়োজন ফোন ও কম্পিউটার। এটি পর্দায় বা স্ক্রিনে বেশি সময় ব্যয় করার বিষয়ে নয়; এটা ইতিমধ্যে ব্যয় করা সময় আরো ভালো করা সম্পর্কে বলা।

আমাদের ভূমিকা এবং দায়িত্ব

মেটাভার্স একটি কোম্পানি দ্বারা তৈরি করা হবে না। এটি নির্মাতা এবং ডেভেলপারদের দ্বারা নির্মিত হবে যারা নতুন অভিজ্ঞতা এবং ডিজিটাল আইটেম তৈরি করবে, যা আন্তঃপরিচালনাযোগ্য। আজকের প্ল্যাটফর্ম ও পলিসির সীমাবদ্ধতার চেয়ে বৃহত্তর সৃজনশীল অর্থনীতিকে প্রকাশ করবে এটি। এই জার্নিতে আমাদের ভূমিকা হল মৌলিক প্রযুক্তির উন্নতি, সামাজিক প্ল্যাটফর্ম এবং সৃজনশীল সরঞ্জামগুলির বিকাশকে ত্বরান্বিত করা যাতে মেটাভার্সকে প্রাণবন্ত করা যায় এবং আমাদের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপের মাধ্যমে এই প্রযুক্তিগুলি বুনন সম্ভব হয়।

আমরা বিশ্বাস করি যে, আজকে বিদ্যমান যেকোন কিছুর চেয়ে মেটাভার্স  ভাল সামাজিক অভিজ্ঞতা দিবে এবং আমরা এর সম্ভাব্যতা অর্জনে সহায়তা করার জন্য আমাদের শক্তি উৎসর্গ করব। যেমন, আমি আমাদের মূল প্রতিষ্ঠাতার চিঠিতে লিখেছিলাম: “আমরা অর্থ উপার্জনের জন্য সার্ভিস তৈরি করি না বরং  আমরা আরও ভাল সার্ভিস বা সেবা তৈরি করার জন্য অর্থ উপার্জন করি।” আমরা  আমাদের ব্যবসা তৈরি করেছি যাতে করে আরও  ভালো সার্ভিস তৈরির জন্য খুব বড় এবং দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের ব্যবস্থা করতে পারি।  আমরা সে পরিকল্পনা করে যাচ্ছি। গত পাঁচ বছর আমার এবং আমাদের কোম্পানির জন্য  অনেক উপায়ই পক্ষে ছিল না। তবে আমার একটি মূল লার্নিং হল,‘ যে পণ্যগুলি তৈরি করা হয়েছে এবং যা মানুষ পছন্দ করে- তা যথেষ্ট নয়।’

আমি বলেবা যে ইন্টারনেটের গল্পটি সহজবোধ্য নয়। প্রতিটি অধ্যায় নতুন কণ্ঠস্বর এবং নতুন ধারণা নিয়ে আসে, তবে নতুন চ্যালেঞ্জ, ঝুঁকি এবং প্রতিষ্ঠিত স্বার্থের ব্যাঘাতও নিয়ে আসে। তাই আমাদেরকে  শুরু থেকেই একসঙ্গে কাজ করতে হবে যাতে করে জীবনে ভবিষ্যতের সর্বোত্তম ভার্সনটি পেতে পারি।

আমি বিশ্বাস করি যে, ভোক্তাদের পছন্দের অভাব এবং ডেভেলপারদের জন্য উচ্চ ফি উদ্ভাবনকে দমিয়ে দিচ্ছে এবং ইন্টারনেট অর্থনীতিকে আটকে রেখেছে। আমরা একটি ভিন্ন পদ্ধতি গ্রহণ করার চেষ্টা করেছি। আমরা চাই আমাদের সেবাগুলো যতটা সম্ভব বেশি লোকের কাছে অ্যাক্সেসযোগ্য হোক এবং কম খরচের হোক। আমাদের মোবাইল অ্যাপসগুলো ফ্রি। আমাদের বিজ্ঞাপন মডেলটি এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে ব্যবসায়িরা সর্বনিম্ন ফি প্রদানে সার্ভিসটি নিতে পারে। আমাদের বাণিজ্য সরঞ্জামগুলোও সামান্য খরচে পাওয়া যাবে। ফলে কোটি কোটি মানুষ আমাদের সেবাগুলোকে ভালবাসে এবং লক্ষ লক্ষ ব্যবসা আমাদের সরঞ্জামগুলির উপর নির্ভর করে।

আমরা কারা

এই পরবর্তী অধ্যায় বা মেটাভার্স শুরু করার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের কোম্পানি এবং আমাদের পরিচয়ের জন্য এর অর্থ কী তা নিয়ে অনেক চিন্তাভাবনা করেছি আমি। আমরা এমন একটি কোম্পানি যা লোকেদের কানেক্ট করার উপর ফোকাস করে। যদিও বেশিরভাগ প্রযুক্তি সংস্থাগুলো কর্মীরা কীভাবে প্রযুক্তির সঙ্গে ইন্টারঅ্যাক্ট করে তার উপর ফোকাস করে। কিন্তু আমরা সর্বদা প্রযুক্তি তৈরিতে ফোকাস করেছি যাতে জনসাধারণ একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে। বর্তমানে আমরা সামাজিক মিডিয়া কোম্পানি হিসেবে পরিচিত। বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত প্রযুক্তি পণ্যের একটি ফেসবুক। এটি একটি আইকনিক সোশ্যাল মিডিয়া ব্র্যান্ড।

সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ তৈরিা করা সবসময়ই আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং সামনে আরও অনেক তেরি করতে হবে। কিন্তু এটা আমরা করছি না। আমাদের ডিএনএ-তে, আমরা মানুষকে একত্রিত করার জন্য প্রযুক্তি তৈরি করি। মেটাভার্স হল লোকেদের সংযোগের পরবর্তী সীমানা।

এই মুহুর্তে আমাদের ব্র্যান্ডটি একটি পণ্যের সঙ্গে এতটাই শক্তভাবে যুক্ত যে এটি ভবিষ্যতে আমরা যা করবো বা করছি তা উপস্থাপন করতে পারবে না। আমি আশা করি  সময়ের সঙ্গে আমাদেরকে একটি মেটাভার্স কোম্পানি হিসাবে দেখা হবে। আমি আমাদের কাজ এবং আমাদের পরিচয়ের উপস্থাপক হতে চাই। বলতে চাই আমরা কিসের দিকে যাচ্ছি। আমরা এইমাত্র ঘোষণা করেছি যে, আমরা আমাদের কোম্পানিতে একটি মৌলিক পরিবর্তন করছি। আমরা এখন আমাদের ব্যবসাকে দুটি ভিন্ন সেগমেন্ট হিসেবে দেখছি: একটি আমাদের অ্যাপ পরিবারের জন্য এবং অন্যটি ভবিষ্যৎ প্লাটফর্মে আমাদের কাজের জন্য।

এখন সময় এসেছে আমরা যা শিখেছি তা দিয়ে পরবর্তী অধ্যায় তৈরি করার। আর পরবর্তী অধ্যায় তৈরি করতে বিশ্বের অন্য যেকোনো কোম্পানির চেয়ে বেশি শক্তি উৎসর্গ করছি। আপনি যদি এই ভবিষ্যত দেখতে চান, আমি আশা করি আপনি আমাদের সঙ্গে যোগ দেবেন। ভবিষ্যৎ আমাদের কল্পনার বাইরে চরে যেতে শুরু করেছে।

এজেড এন বিডি ২৪/হাসান

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x