রবিবার, ০৩ Jul ২০২২, ০৩:০৭ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
ফেরিতে ভয়ঙ্কর জার্নি, অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৮৯৭ ফ্ল্যাট না পেয়ে স্বামীকে ইয়াবায় ফাঁসাতে গিয়ে উল্টো ফাঁসলেন স্ত্রী ‘বাড়ির কারোর মুখে তেমন খুশির ছিটেফোঁটাও দেখতে পাইনি’ বিচারপতি নিজেই চাইলেন বিচার গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা সময়োপযোগী ও সাহসী : টিক্যাব গুগল অ্যাপলের অ্যাপস্টোর থেকে টিকটক সরিয়ে নেওয়ার সুপারিশ নদীতে পড়ে যাওয়া আইফোন ১০ মাস পরও সচল! গ্রেভি বিফ চিলি তৈরির রেসিপি মাহির বডি ফিটনেস নেই, বয়স হয়েছে: আজিজ শাকিবের ৪ কোটি টাকার সিনেমায় নায়িকা পূজা ময়মনসিংহের তুফানের দাম ১৭ লাখ টাকা শিক্ষক উৎপল হত্যা : সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় খুলছে স্কুল ছুটির দিনে পদ্মা সেতুতে চলছে ছবি-সেলফি উৎসব
নামাজের জামাতে যোগ দিতে তাড়াহুড়ো করা যাবে কি?

নামাজের জামাতে যোগ দিতে তাড়াহুড়ো করা যাবে কি?

ইসলাম ডেস্ক: অনেকেই দৌড়ে এসে নামাজের জামাতে অংশগ্রহণ করে। ইমাম সাহেব যখন রুকুতে চলে যায় তখনো অনেকে তাড়াহুড়ো করে দৌড়ে এসে নিয়ত বেঁধেই দ্রুততার সঙ্গে রুকুতে চলে যায়। এভাবে নামাজের জামাতে অংশগ্রহণ করা যাবে কি? নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এভাবে নামাজে অংশগ্রহণ করা সম্পর্কে কী বলেছেন?

নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাড়াহুড়ো করে দৌড়ে এসে নামাজের জামাতে অংশগ্রহণ করতে নিষেধ করেছেন। তিনি নামাজের জামাতে অংশ গ্রহণে ধীরস্থিরতরা অবলম্বন করার কথা বলেছেন। হাদিসে পাকে তা এভাবে ওঠে এসেছে-

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, নবিজী সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনযখন নামাজের ইকামাত বলা হয়, তখন তাড়াহুড়ো না করে ধীরস্থিরভাবে (নামাজে অংশগ্রহণ করতে) আসবে। এরপর জামাতের সঙ্গে যতটুকু (নামাজ) পাবে তা আদায় করে অবশিষ্ট নামাজ নিজে নিজে পূর্ণ করে নেবে। কেননা তোমাদের কেউ নামাজের উদ্দেশ্যে বের হলে তাকে নামাজি হিসেবে গণ্য করা হয়।’ (বুখারি ও মুসলিম)

হাদিসের এ ঘোষণা থেকে বিষয়টি সুস্পষ্ট যে, মসজিদে পৌছে ইমামকে রুকুতে চলে যেতে দেখে দৌড়ে এসে দ্রুততার সঙ্গে নিয়ত বেঁধে নামাজে অংশগ্রহণ করা আবশ্যক নয় বরং ধীরস্থিরতা অবলম্বন করে স্বাভাবিকভাবে নামাজে অংশগ্রহণ করা উত্তম। কারণ মুসল্লি জামাতে নামাজ পড়ার উদ্দেশ্যে যদি ঘর থেকে বের হয় তবে তার এ বের হওয়া থেকে মসজিদে পৌছে নামাজে অংশগ্রহণ পর্যন্ত তা নামাজের অন্তর্ভূক্ত হবে।

সুতরাং তাড়াহুড়ো করে মসজিদে না এসে ধীরস্থিরভাবে মসজিদে আসা উত্তম। বরং নামাজের জামাত শুরু হওয়ার নির্ধারিত সময়ের কিছু সময় আগে মসজিদের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়া আবশ্যক। কেননা নামাজের জন্য অপেক্ষাকারী ব্যক্তির অপেক্ষার সময়ও নামাজের অন্তর্ভূক্ত।

একান্তই যদি মসজিদে আসার আগে নামাজের জামাত শুরু হয়ে যায় তবে তাড়াহুড়ো না করে ধীরস্থির ও শান্তভাবে মসজিদে উপস্থিত হয়ে জামাতে অংশ গ্রহণ করাই শ্রেয়।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে নামাজের জামাতে অংশ নিতে যথা সময়ে মসজিদে আসার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এজেড এন বিডি ২৪/ রেজা

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x