বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৬:১০ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
মণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখা কে এই ইকবাল? প্রকাশ পেল যুবলীগের চিঠি সংকলন গ্রন্থ ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ ঝিনাইদহে ছিনতাইকারী চক্রের ৩ সদস্য গ্রেফতার পাপুয়া নিউগিনিকে ১৮২ রানের টার্গেট দিল বাংলাদেশ অর্থপাচার মামলা: কুয়েতে দণ্ডপ্রাপ্ত পাপুলসহ চারজনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২২ ডিসেম্বর ফিফটির পর সাজঘরে মাহমুদউল্লাহ অর্ধশতক হাঁকিয়ে ফিরলেন মাহমুদুল্লাহ পাপুয়া নিউগিনিকে ১৮২ রানের টার্গেট দিল টাইগাররা ৩৯ বছর আগে পাপুয়া নিউগিনির কাছে হেরেছিল বাংলাদেশ রিয়াদের দ্রুততম ফিফটিতে বাংলাদেশের বিরাট সংগ্রহ জামিন পেলেন সেই চিত্ত রঞ্জন দাস পুলিশের ওপর ক্ষুদ্ধ হয়ে রাজধানীতে ফের নিজের মোটরসাইকেলে আগুন সাড়ে ১৮ হাজারে বিক্রি হলো সাড়ে ১৫ কেজির বোয়াল সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের এমডি হলেন সুভাষ চন্দ্র বাদল ইকবালকে পাগল দাবি করে যা বলছে তার পরিবার
ছয় শব্দের চিরকুটে শিশু হত্যার রহস্য উন্মোচন

ছয় শব্দের চিরকুটে শিশু হত্যার রহস্য উন্মোচন

অনলাইন ডেস্কঃ এক চিরকুটের সূত্রে ধরে নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানায় দুই মাসের শিশু ইমাম হোসেনকে পুকুরে ফেলে হত্যার রহস উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। পরিবারের লোকজনের উপহাস ও স্বামী ভরণ-পোষণ না দেওয়ায় নিজের ছেলেকে পুকুরে ফেলে হত্যা করেন মা।

রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুন্নাহার ইয়াসমিনের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন শিশুটির মা খাদিজা আক্তার পিংকি।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, স্বামী ভরণ-পোষণ না দেওয়ায় এবং পরিবারের লোকজনের উপহাস সহ্য করতে না পেরে ২০২০ সালের ১৯ এপ্রিল রাত সাড়ে ১২টার দিকে তার ঘুমন্ত ছেলে ইমাম হোসেনকে কোলে নিয়ে ঘরের পাশের পুকুরে ফেলে হত্যা করেন।

মামলাটির তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, ২০২০ সালের ১৯ এপ্রিল রাতে নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার ১নং মাধবপাশা (কান্দিপাড়া) এলাকার বাদী মো. রুবেলের (ভিকটিমের বাবা) শ্বশুর জবেদ আলীর বসতবাড়ি থেকে নবজাতক ইমাম হোসেন হারিয়ে যায়। তখন নিখোঁজের মা মোসাম্মৎ খাদিজা আক্তার পিংকি চিৎকার দিলে বাড়ির লোকজন আসেন। ওই সময় জিজ্ঞাসাবাদে খাদিজা জানান তার ছেলে ইমাম হোসেন ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় কারা যেন চুরি করে নিয়ে গেছে। পরদিন ২১ এপ্রিল সকালে খাদিজা আক্তার পিংকির বসতবাড়ির পার্শ্ববর্তী পুকুর থেকে তার ছেলেকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় করা মামলার তদন্তভারের দায়িত্ব নেয় পিবিআই। তদন্তকালে ঘটনাস্থল থেকে ছয় শব্দের একটি ছোট কাগজের টুকরা আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়। জব্দ কাগজে লেখা থাকে ‘বাচা গড়ে গড়ে চুরি করমু সাবথাব’। এই কাগজে হাতের লেখার বিষয়ে ঘটনাস্থলসহ আশপাশের লোকজনের নমুনা লেখা সংগ্রহ করা হয়। পর্যালোচনার একপর্যায়ে ভিকটিমের মা খাদিজা আক্তার পিংকির হাতের লেখার সঙ্গে মিল পাওয়া যায়।

এরপর আদালতের মাধ্যমে সংগ্রহ করে নমুনা হাতের লেখা বিশেষজ্ঞ দ্বারা তুলনামূলক পরীক্ষা করে জব্দ লেখা ভিকটিমের মা পিংকির লেখার সঙ্গে মিল পায়। হাতের লেখা মিলে যাওয়ার ঘটনায় পিবিআই নারায়ণগঞ্জ অফিসে নিয়ে পিংকিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

এ সময় তিনি জানান, তার স্বামী তাকে বার বার টাকার জন্য চাপ দিতেন। তার স্বামী (বাদী) চাইতেন তার স্ত্রী খাদিজা আক্তার পিংকি তাকে কামাই করে খাওয়াবেন। তিনি বাবার বাড়িতে আসার পর তার স্বামী (বাদী) কোনো ভরণ-পোষণ দিতেন না। এটা নিয়ে তার পরিবারের লোকজন তাকে উপহাস করতেন। তাই তিনি চাপ সহ্য করতে না পেরে তার ঘুমন্ত ছেলে ইমাম হোসেনকে কোলে নিয়ে ঘরের পাশের পুকুরে ফেলে দেন।

এজেড এন বিডি ২৪/হাসান

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x