সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- 01855883075 ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
যমুনায় জেলের জালে ৪৭ কেজির বাঘাইড়! রমেক হাসপাতালে অনিয়মের প্রতিবাদে গোলটেবিল বৈঠক মা-বাবা-বোনকে হত্যা মামলায় রিমান্ডে মেহজাবিন রমেকে ৪ হাত-পা বিশিষ্ট নবজাতক, ঋণের বোঝা নিয়ে বাড়ি ফিরলেন দিন মজুর পিতা যুবদলের পদবঞ্চিত নেতাদের তোপের মুখে ফখরুল ২৪ ঘণ্টায় ৮২ জনের মৃত্যু, সাত সপ্তাহে সর্বোচ্চ ডাস্টবিনে মিলল সাড়ে তিনশ বছরের পুরনো মূল্যবান চিত্রকর্ম নির্ধারিত স্থান ছাড়া সিটি করপোরেশন-পৌরসভার টোল আদায় নয় বৈচিত্র্যময় টাঙ্গুয়ার হাওরে রোমাঞ্চকর একদিন সিলেট ভ্রমণে যা কিছু দেখবেন তৃতীয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হবে ‘ঘোর’ বাবার প্রতি সন্তানের করণীয়; ইসলাম কী বলে? অবশেষে মুখে হাসি ফুটল চিরদুঃখী সুফিয়ার ভারতে সন্তান জন্মদানের পরেই নেয়া যাবে ভ্যাকসিন গোলের সেঞ্চুরি করে নতুন মাইলফলকে সাবিনা
রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবন-ভিসির বাংলোতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবন-ভিসির বাংলোতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদকঃ রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) প্রশাসনিক ভবন ও ভিসির বাংলোতে প্রবেশের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। অনুমতি ছাড়া এসব ভবনে কেউ প্রবেশ করতে পারবেনা জানিয়ে এক অফিস আদেশে এসব উল্লেখ করা হয়েছে।

ঢাকার লিয়াজো অফিসে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের ৭৫ তম বিশেষ সভায় এসব সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয় বলে, ৩১ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার আবু হেনা মোস্তফা কামাল স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে এসব নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলেও বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশ্যে আসে।
এছাড়াও নোটিশে প্রশাসনিক ভবন, ভিসির বাংলো, একাডেমিক ভবন এবং শ্রেণীকক্ষের সামনে মিছিল-মিটিং, অবস্থান ধর্মঘট, বিক্ষোভ প্রদর্শন, স্লোগান, বক্তব্য প্রদান ও মৌন মিছিলসহ প্রতিবাদের অংশ হিসেবে তালা লাগিয়ে কোনো প্রতিবাদের কর্মকাণ্ডেও নিষেধাজ্ঞা দিয়ে তা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারিও উল্লেখ করা করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

প্রশাসনের একটি সূত্র জানায়, সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন দাবি নিয়ে প্রশাসন ভবনে তালা ঝুলিয়ে আন্দোলন, রাতের আঁধারে ভিসির ক্যাম্পাস ত্যাগসহ বিভিন্ন ঘটনা সরকারের সর্বোচ্চ মহলে বেশ সমালোচনা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে সিন্ডিকেটের এই বিশেষ সভা ডাকা হয়।

এদিকে এমন নোটিশ জারির ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা নিন্দা জানিয়ে দ্রুত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী পোমেল বড়ুয়া বলেন, ছাত্র সংসদ না থাকায় এতো দিন বিভিন্ন দাবি-দাওয়া আদায়ে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করেছে। এখন সেই সুযোগটিও রইলো না। সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য এই কঠোরতার বিপরীতে প্রশাসনের জবাবদিহিতার অভাব চরম আকারে পৌঁছালো বলে মনে করেন তিনি। শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. গাজী মাজহারুল আনোয়ার বলেন, প্রতিদিন অসংখ্য শিক্ষক-শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন কাজে প্রশাসনিক ভবনে যেতে হয়, অনুমতি কোথায় নিবে? আর, নিতে হবে কেন!।

ভিসি ও তার অনুগামীদের কথা উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, প্রতিদিনই যারা আইন ভঙ্গ করে চলেছেন, তাঁরাই আবার আইন তৈরি করছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে মতো একটি প্রতিষ্ঠানে প্রকাশের স্বাধীনতা থাকতে হবে বলেও দাবি করেন। তার মতে, উপাচার্য, রেজিস্ট্রার বছরের পর বছর অনুপস্থিত থেকে নিজেরাই রাষ্ট্রীয় আইন ভঙ্গ করে চলেছেন, এইসব হঠকারী সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যালয়কে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাবে। অধিকার সুরক্ষা পরিষদের আহবায়ক অধ্যাপক ড. মতিউর রহমান এই অফিস আদেশকে একটি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানে সেনা শাসনের ফরমান বলে উল্লেখ করে বলেন, ভিসি নিজেই বছরের পর ক্যাম্পাসে না এসে নিয়োগ শর্ত ভেঙ্গে অনিয়ম করে বিশ্ববিদ্যালয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করে চলেছেন।

এমন ফরমান জারি করার এখতিয়ার ভিসির নেই বলে উল্লেখ করেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তারিকুল ইসলাম নিষেধাজ্ঞা সম্পর্কে বলেন, উদ্ভটগিরীর সীমা থাকা দরকার। শুধুমাত্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যাচ্ছেতাই করতে পারবেন। আইন ভাঙবেন, আদালত মানবেন না, যাকে ইচ্ছা তাকে বহিষ্কার করবেন। বেতন বন্ধ করবেন, চাকরি খাবেন, বিধি বহির্ভূতভাবে ডিন, বিভাগীয় প্রধান নিয়োগ দিবেন, প্রকল্প নিয়ে দুর্নীতি করবেন, নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতি করবেন। উপাচার্য একাই দশক দশক এমফিল/পিএইচডি তত্ত্বাবধান করবেন, উপাচার্য-রেজিস্ট্রার কেউই অফিস করবেন না আর ঢাকায় বসে ভেঁপু বাজিয়ে এসব নোটিশ দেবেন এটা চলতে পারে না। এই নোটিশ প্রকাশের পর থেকে স্থানীয় সাংবাদিকরা অব্যাহতভাবে চেষ্টা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আতিউর রহমান, রেজিস্ট্রার আবু হেনা মোস্তফা কামাল, প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. সরিফা সালোয়া ডিনা, ভিসি অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর মুঠোফোনে যোগাযোগ করার। কারও ফোন তারা রিসিভ করেননি।

এজেড এন বিডি ২৪/ রেজা

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved@2021 aznewsbd24.com
Design & Developed BY MahigonjIT