শনিবার, ২১ মে ২০২২, ১২:২১ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
২০ বছর পর আবারও বেন অ্যাফ্লেক-জেনিফার লোপেজের বাগদান রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় শেষ নেই চাঁদাবাজির তবুও ‘বদলি’ খেলোয়াড় তাইজুল! সাকিব আল হাসানের শাশুড়ি আর নেই অভিযুক্তকে আজীবন নিষিদ্ধের দাবি, চাহালকাণ্ডে ক্ষোভে ফুঁসছেন শাস্ত্রী টেকনাফে পুলিশের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ ‘ভারতকে বেশি ভালোবাসলে, সেখানে চলে যান’, ইমরানকে মরিয়াম ভাগ্য নির্ধারণী অধিবেশনে অনুপস্থিত ইমরান খান বহ্নি চরিত্রে মিথিলার লুক খুলনায় ট্যাংকলরি শ্রমিকদের কর্মবিরতি সাময়িক স্থগিত ‘প্রেমের প্রস্তাবে’ রাজি না হওয়ায় ওসির মেয়েকে মারধর, মামলা দায়ের ডা. বুলবুল হত্যাকাণ্ড; চার পেশাদার ছিনতাইকারী গ্রেফতার মেয়েদের নিয়ে স্কুল থেকে ফেরা হলো না সাবিনার ‘রাজকুমার’ শাকিবের নায়িকা হচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের কোর্টনি নিয়ম তো সবার জন্য এক মামা, ঋতুপর্ণাকে খোঁচা শ্রীলেখার?
কলেজছাত্রী প্রীতির প্রতিপক্ষ কে ছিল?

কলেজছাত্রী প্রীতির প্রতিপক্ষ কে ছিল?

ফেসবুক কর্নার ডেস্কঃ বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ১০টার দিকে রাজধানীর শাহজাহানপুরে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়ে মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক টিপুকে হত্যা করা হয়েছে। এ সময় সড়কে যানজটে আটকা পড়ে রিকশায় বসে থাকা কলেজছাত্রী সামিয়া আফরান জামাল প্রীতিও (২২) গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান।

শুক্রবার (২৫ মার্চ) লেখক ও সাংবাদিক ইশতিয়াক আহমেদ এ ঘটনায় তার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, “২০০২ সালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের দুই পক্ষের সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে নিহত হয়েছিলো সাবেকুন নাহার সনি। সনির দোষ ছিলো না।

সে ছিলো ছাত্রদলের টেন্ডার বাণিজ্যের বলি। সনি হত্যার বিচার ও ছাত্রদলের নির্মমতা কম আলোচিত হয়নি দীর্ঘ সময়ে। আবারও অনেকটা একইরকম ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলো।

রাজনৈতিক প্রতিহিংসা আর মৃত্যু নিয়ে খেলার মাঝে পড়ে মারা গেলো বেগম বদরুন্নেছা সরকারি মহিলা কলেজের অনার্সের ছাত্রী প্রীতি। যদিও এখানে মারা গেছে প্রতিপক্ষের টার্গেটে থাকা বৃহত্তর মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সেক্রেটারি জাহিদুল ইসলাম টিপু।

কোনো মৃত্যুই কাম্য নয়। টিপুরও না। দুই সন্তানের পিতা তিনি। পিতৃহারা দুই সন্তানের মুখ কোনো মানুষের পক্ষে দেখা সম্ভব না। তবে টিপু প্রতিহিংসার শিকার, টিপুর প্রতিপক্ষ আছে। কিন্তু এই কলেজছাত্রী প্রীতির প্রতিপক্ষ কে?

যে নিরীহ মেয়েটা রাতে বান্ধবীর সঙ্গে ঘুরতে বের হলো, কোনো কারণ ছাড়াই শরীরে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেলো। তার প্রতিপক্ষ সন্দেহাতীতভাবে এই রাষ্ট্র। বিচারহীনতা, ক্ষমতার আধিপত্য, আইনের ঊর্ধ্বে চলে যাওয়ার রাজনৈতিক পরিচয় যখন বড় হয়ে যায় তখন প্রীতিদের বা আমাদের কেউ থাকে না।

রাষ্ট্র তুমি নমনীয় হও। মানবিক হও। জবাবদিহিতার কাঠগড়ায় দাঁড়াও…”

এজেড এন বিডি ২৪/ রামিম

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x