সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:২৯ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্বের বাধ্যবাধকতা তুলে নিল সৌদি নুসরাতের মামলা: অসংলগ্ন অনুমান আর কল্পনা মানুষের জীবনের থেকেও কি ধর্ম বড়, প্রশ্ন শ্রীলেখার স্ত্রীকে রেখে দশম শ্রেণির ছাত্রীকে বিয়ে করলেন শিক্ষক হাতির পিঠে চড়ে মনোনয়ন জমা সনাতন ধর্মাবলম্বীর সৎকারে এগিয়ে এলো মুসলিমরা আবারও বাড়ছে ভোজ্যতেলের দাম বগুড়ার অপু বিশ্বাস যেভাবে সিনেমার নায়িকা হলেন শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন আজ স্কটল্যান্ডের কাছে হেরে বিশ্বকাপ শুরু বাংলাদেশের বাংলাদেশের সামনে চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য ছুঁড়ে দিল স্কটল্যান্ড মালিঙ্গাকে পেছনে ফেলে বিশ্ব রেকর্ড সাকিবের কাপাসিয়ায় ১১ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ৫০ জন লক্ষ্মীপুরে ৪ ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে ২৮ জনের মনোনয়নপত্র দাখিল বাংলাদেশের দাপুটে বোলিংয়ে কোণঠাসা স্কটল্যান্ড
আমাজনে ফের ভয়াবহ দাবানল

আমাজনে ফের ভয়াবহ দাবানল

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ পৃথিবীর ‘ফুসফুস’ খ্যাত বিশ্বের সর্ববৃহৎ রেইনফরেস্ট আমাজনে ফের ছড়িয়ে পড়েছে ভয়াবহ দাবানল। মানবসৃষ্ট এই অগ্নিকাণ্ডে বনাঞ্চলটির ল্যাবরিয়া অঞ্চলের বিশাল এলাকা পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এ নিয়ে টানা তৃতীয়বারের মত আগুনের ঘটনা ঘটল আমাজনে।

আমাজনের এমন ভয়াবহ অবস্থা গেল এক দশকেও দেখেনি কেউ। এতে উদ্বিগ্ন পরিবেশবাদীরা। গত কয়েক বছরে দক্ষিণ আমাজনে বন উজাড়ের হার বহুগুণ বেড়ে গেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গত বুধ এবং বৃহস্পতিবার ল্যাবরিয়া শহরের সীমান্তবর্তী এলাকা ছাড়াও আশপাশের ন্যাশনাল পার্কে গাছ কেটে পুড়িয়ে ফেলা হচ্ছে। কেটে ফেলা গাছের গুঁড়িগুলো পুড়ে কয়লা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে শুকনো কাঠির মতো। ফলে গত বছরের তুলনায় এ বছর সৃষ্ট দাবানলের পরিমাণও বেশি হচ্ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে একরের পর একর বনাঞ্চল উজাড় করে প্রকৃতিকে বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দেওয়ায় চরম সমালোচনার মুখে পড়ছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারো।

তিনি ক্ষমতায় থাকাকালীন তৃতীয়বারের মতো রেকর্ডসংখ্যক একর বনাঞ্চল ধ্বংস হলো। আমাজন এলাকায় সৃষ্ট দাবানলের কারণ হিসেবে সেনাবাহিনীর ক্যাম্প স্থানান্তর, কৃষি সম্প্রসারণ আর একের পর এক উন্নয়ন কার্যক্রমকেই দায়ী করছেন পরিবেশবিদরা। এতে অচিরেই মারাত্মক হুমকির মুখে পড়বে প্রাণের অস্তিত্ব, এমনটাই আশঙ্কা করছেন তারা।

স্যাটেলাইটে আমাজনে এ পর্যন্ত ২৮ হাজারের বেশি অগ্নিকাণ্ড রেকর্ড করা হয়েছে। লাখ লাখ প্রাণী বিলুপ্ত হয়ে গেছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে সবাইকে পরিবেশ বিপর্যয়ের মাশুল দিতে হবে বলে হুঁশিয়ারি বিশেষজ্ঞদের।

এজেড এন বিডি ২৪/ রামিম

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x