বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- aznewsroom24@gmail.com ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
যে নামে হতে পারে কুমিল্লা ও ফরিদপুর বিভাগ চুল পড়া বন্ধের দুর্দান্ত উপায় সাকিব-লিটনের ব্যাটে এগোচ্ছে বাংলাদেশ ৪ জাতি টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের কোচ আবাহনীর লেমোস দলের প্রয়োজনে সড়ে দাঁড়াবেন মরগান করোনায় আরও ১০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৩ অষ্টগ্রামের পনিরের কদর এখন সর্বত্র খুলনায় মাদক মামলায় ২ জনের যাবজ্জীবন নিজ দলেই বিতর্কিত তারেক, শঙ্কা ভবিষ্যৎ নিয়ে দেশে ডিজিটাল ডিভাইস উৎপাদনের যাত্রা শুরু হয়েছে: টেলিযোগাযোগমন্ত্রী সুন্দরবন সুরক্ষায় স্ট্র্যাটেজিক এনভায়রনমেন্টাল ম্যানেজমেন্ট প্ল্যান করা হয়েছে: পরিবেশমন্ত্রী ‘রপ্তানি বাণিজ্য গতিশীল করতে বিভিন্ন ধরনের মেলার বিকল্প নেই’ ডিএমপির ৭ ইন্সপেক্টরকে বদলি জন্মদিনে ধরা দেবেন ‘লাল-সাদা’ পরী, আমন্ত্রণ তালিকায় কারা? ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলায় বাংলাদেশের অংশগ্রহণ তাৎপর্যপূর্ণ: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী
আবদুল মান্নান সৈয়দ’র ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী

আবদুল মান্নান সৈয়দ’র ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী

সাহিত্য ডেস্ক: আবদুল মান্নান সৈয়দ। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের একজন আধুনিক কবি, সাহিত্যিক, গবেষক ও সাহিত্য সম্পাদক। সাহিত্য মহলে ‘মান্নান সৈয়দ’ নামেই পরিচিত। ২০১০ সালের ৫ সেপ্টেম্বর তিনি ঢাকায় মারা যান।

পাঁচ দশকের বেশি সময় ধরে বাংলা সাহিত্যের আধুনিক কবি, সাহিত্যিক, গবেষক ও সাহিত্য-সম্পাদক ছিলেন তিনি। লিখেছেন কবিতা ছাড়াও গল্প, উপন্যাস, সমালোচনা, নাটক প্রভৃতি। সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় অবদান রেখেছেন, ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী নাম তাঁর আবদুল মান্নান সৈয়দ। ছদ্মনাম অশোক সৈয়দ।

১৯৪৩ সালে ৩ আগস্ট, অবিভক্ত ভারত উপমহাদেশের পশ্চিমবঙ্গে জালালপুর গ্রামে আবদুল মান্নান সৈয়দ জন্মগ্রহণ করেন। বাবা সৈয়দ এ এম বদরুদ্দোজা মা কাজী আনোয়ারা মজিদ। বাবা-মা দুইজনেই ছিলেন সাহিত্যানুরাগী। তারা ছয় ভাই, চার বোন। ১৯৫০ সালে ভয়াবহ দাঙ্গা হয় পশ্চিমবঙ্গে। তখন তার বাবা সপরিবার পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমান বাংলাদেশ) চলে আসেন এবং ঢাকার গোপীবাগে বাড়ি বানিয়ে বসবাস করতে শুরু করেন। যা ছিল আবদুল মান্নান সৈয়দের আমৃত্যু ঠিকানা।

তিনি ১৯৫৮ সালে ঢাকার নবাবপুর সরকারি উচ্চবিদ্যালয় থেকে প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ঢাকা কলেজ থেকে কলা বিভাগে উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ হন ১৯৬০ সালে। পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা ভাষা ও সাহিত্য অধ্যয়ন করেন এবং ১৯৬৩ সালে স্নাতক এবং ১৯৬৪ সালে স্নাতকোত্তর লাভ করেন।

শিক্ষাজীবন শেষে তিনি একটি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানে কাজ শুরু করেন। পরবর্তী সময়ে সিলেটের এম সি কলেজে শিক্ষকতা দিয়ে শুরু করেন কর্মজীবন। তিনি অধ্যাপনা করেই জীবিকা নির্বাহ করেন। ফরিদপুর শেখ বোরহানুদ্দীন কলেজ, সিলেটের এম সি কলেজে এবং ঢাকায় জগন্নাথ কলেজে অধ্যাপনা করেছেন। দায়িত্ব পালন করেছেন ডিসট্রিক্ট গেজেটিয়ারে। ঢাকার জগন্নাথ কলেজে দীর্ঘকাল অধ্যাপনা করার পর ২০০২ থেকে ২০০৪ পর্যন্ত মেয়াদের জন্য তিনি নজরুল ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালকের পদে দায়িত্ব পালন করেন।

গ্রন্থমালা:

জীবিত কালে তার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা প্রায় ১৫০।

কবিতা : জন্মান্ধ কবিতাগুচ্ছ, জ্যোৎস্না রৌদ্রের চিকিৎসা, ও সংবেদন ও জলতরঙ্গ, কবিতা কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড, পরাবাস্তব কবিতা, পার্ক স্ট্রিটে এক রাত্রি, মাছ সিরিজ, নির্বাচিত কবিতা এবং আমার সনেট। উপন্যাস : পরিপ্রেক্ষিতের দাস-দাসী, অ-তে অজগর, কলকাতা, ক্ষুধা প্রেম আগুন, পোড়ামাটির কাজ এবং হে সংসার হে লতা। ছোটগল্প : সত্যের মতো বদমাশ, চলো যাই পরোক্ষে, মৃত্যুর অধিক লাল ক্ষুধা, নেকড়ে হায়েনা এবং তিন পরী। প্রবন্ধ : বিবেচনা-পুনর্বিবেচনা, দশ দিগন্তের দ্রষ্টা, নির্বাচিত প্রবন্ধ, করতলে মহাদেশ, আমার বিশ্বাস এবং ছন্দ। স্মৃতিকথা : ভেসেছিলেম ভাঙা ভেলায়। গবেষণা গ্রন্থ : কালান্তরের যাত্রী। জীবনী : নজরুল ইসলাম: কবি ও কবিতা, বেগম রোকেয়া, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, সৈয়দ মুর্তাজা আলী, ফররুখ আহমদ, শাহাদাত হোসেন, প্রবোধচন্দ্র সেন এবং আবদুল গনি হাজারী।

এজেড এন বিডি ২৪/হাসান

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© 2021, All rights reserved aznewsbd24
x