শুক্রবার, ২৫ Jun ২০২১, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- 01855883075 ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
তিনি প্রখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার ত্রিপুরার নীল রানাউত ধর্ষণের দায়ে ৭ পুরুষকে হত্যা করেন যে নারী! কাঞ্চন বলছে মাসে সাড়ে ৩ লাখ টাকা চেয়েছি, প্রমাণ কী : পিঙ্কি ওসি প্রদীপের সহযোগী কনস্টেবল সাগরের আত্মসমর্পণ এবার ইন্দিরা গান্ধী চরিত্রে কঙ্গনা, পরিচালনাও করবেন তিনি ব্রাজিলের সেই গোল নিয়ে বিতর্ক থামছেই না, দেখুন ভিডিও জর্ডান-ইরানের গ্রুপে সাবিনা-মৌসুমিরা জেলের জালে ধরা পড়লো শুশুক, কিনে জরিমানা গুনলেন দুজন তেত্রিশ বসন্ত পেরিয়ে চৌত্রিশে মেসি নির্মাণ হচ্ছে আটটি আধুনিক সাইলো জীবিকার চাকা সচল রাখতে দক্ষতার পরিচয় দিচ্ছে সরকার শনিবার থেকে পিরোজপুরের ৪ পৌর এলাকায় লকডাউন সাবেক ডিআইজি প্রিজন্স পার্থের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দীর্ঘদিন করোনায় ভুগে হতাশা-যন্ত্রণায় আত্মহত্যা জেনারেল র‍্যাংক ব্যাজ পরানো হলো নতুন সেনাপ্রধানকে
শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতন, শিক্ষিকা গ্রেপ্তার

শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতন, শিক্ষিকা গ্রেপ্তার

জেলা প্রতিনিধি: শিশু গৃহকর্মীকে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগে এক শিক্ষিকাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মিনতি খাতুন (১০) নামের এক শিশুকে নির্যাতনের অভিযোগে সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের ওই শিক্ষিকাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

শনিবার (৯ জানুয়ারি) রাতে শহরের ফজলখান রোড এলাকার ভাড়া বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। রোববার (১০ জানুয়ারি) সকালে এতথ্য নিশ্চিত করেছেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহা উদ্দিন ফারুকী।

গ্রেপ্তার শিক্ষিকা শিউলী মল্লিকা সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের দর্শন বিভাগের লেকচারার ও শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ২৫০ শয্যা হাসপাতালের ডাক্তার নুরুল ইসলামের দ্বিতীয় স্ত্রী।

ওসি বাহা উদ্দিন ফারুকী জানান, ৭ জানুয়ারি শিউলি মল্লিকা গৃহকর্মী শিশু মিনতি খাতুন হারিয়ে গেছে মর্মে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপর ৯ জানুয়ারি সন্ধ‌্যায় শিশু মিনতিকে অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এ সময় মিনতির শরীরে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন ছিলো।

খবর পেয়ে মিনতির অভিভাবক খালু আবুল কাশেম বাদী হয়ে মামলা করেছেন। এরপর পুলিশ তাৎক্ষণিক শিক্ষিকা শিউলি মল্লিকাকে গ্রেপ্তার করে।

জিজ্ঞাসাবাদে মিনতি জানায়, প্রতিদিন শিউলি মল্লিকা তাকে নির্যাতন করতেন। এক পর্যায়ে গত ৭ জানুয়ারি শিউলির নির্যাতন সইতে না পেরে সে বাসা থেকে বের হয়ে যায়। অসুস্থ শরীর আর চোখের পানি দেখে সন্ধ‌্যায় কামারখন্দ উপজেলার ভদ্রঘাট গ্রামের জাহানারা নামে এক নারী তাকে উদ্ধার করেন চিকিৎসা ও খাবার দেন। পরে পুলিশকে খবর দিয়ে মিনতিকে পুলিশের কাছে বুঝে দেন তিনি।

ওসি আরো জানান, শিউলির স্বামী ডা. নুরুল ইসলাম পুলিশকে তার স্ত্রী শিশু মিনতিকে প্রতিনিয়তই নির্যাতন করতেন বলে স্বীকার করছেন।

অপরদিকে, নির্যাতিত মিনতিকে উদ্ধারের পর পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম তাকে চিকিৎসা সেবা, শীতের পোষাকসহ সব ধরনের সহযোগিতা দিয়েছেন। এবং পুলিশি নিরাপত্তায় রাখার জন্য থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, মিনতির বয়স যখন ৬ মাস তখন তার বাবা মক্কা মারা যান। এর কয়েক মাস পরে মা মমতাও মারা যায়। এরপর নানি রহিমা বেগমের কাছে বড় হয় সে। নানির অভাবের সংসারে খাবার না পেয়ে ৯ বছর বয়সে গৃহকর্মীর কাজে আসে শিউলি মল্লিকার বাসায়। গৃহকর্মী হিসেবে কাজে যোগদানের মাস খানেক পর থেকেই শিউলি মল্লিকা শিশু মিনতির ওপর অমানবিক নির্যাতন করতেন।

এজেড এন বিডি ২৪/ রেজা

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved@2021 aznewsbd24.com
Design & Developed BY MahigonjIT