শুক্রবার, ২৫ Jun ২০২১, ০১:১৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা নিবেন। সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের ওয়েব সাইট নিয়মিত ভিজিট করুন এবং আমার ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক দিয়ে ফলো অপশনে সি-ফাষ্ট করে সঙ্গেই থাকুন। আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচারে স্বল্পমূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- 01855883075 ধন্যবাদ।
সর্বশেষ সংবাদ :
তিনি প্রখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার ত্রিপুরার নীল রানাউত ধর্ষণের দায়ে ৭ পুরুষকে হত্যা করেন যে নারী! কাঞ্চন বলছে মাসে সাড়ে ৩ লাখ টাকা চেয়েছি, প্রমাণ কী : পিঙ্কি ওসি প্রদীপের সহযোগী কনস্টেবল সাগরের আত্মসমর্পণ এবার ইন্দিরা গান্ধী চরিত্রে কঙ্গনা, পরিচালনাও করবেন তিনি ব্রাজিলের সেই গোল নিয়ে বিতর্ক থামছেই না, দেখুন ভিডিও জর্ডান-ইরানের গ্রুপে সাবিনা-মৌসুমিরা জেলের জালে ধরা পড়লো শুশুক, কিনে জরিমানা গুনলেন দুজন তেত্রিশ বসন্ত পেরিয়ে চৌত্রিশে মেসি নির্মাণ হচ্ছে আটটি আধুনিক সাইলো জীবিকার চাকা সচল রাখতে দক্ষতার পরিচয় দিচ্ছে সরকার শনিবার থেকে পিরোজপুরের ৪ পৌর এলাকায় লকডাউন সাবেক ডিআইজি প্রিজন্স পার্থের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দীর্ঘদিন করোনায় ভুগে হতাশা-যন্ত্রণায় আত্মহত্যা জেনারেল র‍্যাংক ব্যাজ পরানো হলো নতুন সেনাপ্রধানকে
মৈনাক পর্বতের চূড়ায় পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড়

মৈনাক পর্বতের চূড়ায় পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড়

ভ্রমন ডেস্কঃ কক্সবাজারের সাগর দ্বীপ মহেশখালীর মৈনাক পর্বতের চূড়ায় হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্বোচ্চ তীর্থস্থান আদিনাথ মন্দির এখন সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটন স্পট। প্রতিদিন হাজারো পর্যটকের পদভারে মুখরিত আদিনাথ মন্দির লোকে লোকারণ্য থাকে বছরের অধিকাংশ সময়।

এদিকে প্রতি বছর ফাল্গুন মাসের শুক্লা তিথিতে আদিনাথ মন্দিরে শিব চতুর্দশীপূজা ও মাসব্যাপী মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতি বছর আদিনাথ মন্দিরে মাসব্যাপী মহোৎসবের আয়োজন করা হয়। এটিকে বলা হয় শিব চতু্র্দশী পূজা ও মেলা। এ উপলক্ষে সপ্তাহব্যাপী চলে পূজা। এতে দেশি বিদেশি লাখো ভক্ত অনুরাগীর পদচারণায় মুখরিত হয় মেলাঙ্গন। এ সময় পর্যটক আর পূজার্থীরা একাকার হয়ে যায়।

ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, ভুটান, মালদ্বীপ ও থাইল্যন্ডসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে ভক্ত পূজারীরা মহেশখালীর মৈনাক পর্বতের চূড়ায় জড়ো হয়। সমতল থেকে ১৫০ ফুট চূড়ায় অবস্থিত আদিনাথ মন্দির শুধু পূজার্থীদের কাছে নয় পর্যটকদের কাছে মনোমুগ্ধকর আকর্ষনীয় স্থান।

এমনিতেই পর্যটন মৌসুমে কক্সবাজারে আসা পর্যটকদের একটি বড় অংশ আদিনাথ মন্দির দর্শন না করে বাড়ি ফিরে না। কক্সবাজারের ৬ নম্বর জেটি ঘাট থেকে মাত্র ১৫ মিনিটে স্পিড বোটে চড়ে বাঁকখালী নদীর মোহনা পার হয়ে মহেশখালী চ্যানেলের সন্নিহিত স্থানেই আদিনাথ জেটিতেই ভিড়ে পর্যটকবাহী বা তীর্থযাত্রী বাহী নৌযান। হিন্দুদের সর্বোচ্চ এই তীর্থ স্থান পর্যটকদের বিনোদন কেন্দ্র হিসেবেও স্বীকৃত।

কক্সবাজার মহেশখালী-কুতুবদিয়া সংসদীয় এলাকার এমপি আশেক উল্লাহ রফিক এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন আদিনাথ মন্দির রক্ষণাবেক্ষণ, সংস্কার ও পর্যটকদের আকর্ষণ বাড়াতে শত কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এ সব উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত হলে পর্যটকদের রাত যাপনসহ বিবিধ সুযোগ সুবিধার ধার উন্মোচিত হবে বলে মনে করেন এমপি আশেক উল্লাহ রফিক।

মহেশখালী পৌর কাউন্সিলর ও আদিনাথ পরিচালনা কমিটির উপদেষ্টা সনজিত চক্রবর্তী বলেন, হাজার বছরের ঐতিহ্যবাহী আদিনাথ মন্দির দর্শনে আসা পর্যটক ও পূজার্থীদের যথাযথ আপ্যায়ন ও থাকার সু- ব্যবস্থা এখনো পর্যন্ত গড়ে উঠেনি। তাই সংশ্লিষ্ট সরকারের ধর্ম মন্ত্রণালয়কে আদিনাথ মন্দির সংলগ্ন খালি জায়গায় রেস্ট হাউস বা কটেজ নির্মাণ করার দাবি জানাচ্ছি। তা নির্মিত হলে দেশি বিদেশি পর্যটক ও পূজার্থীদের দুর্ভোগ বহুলাংশে হ্রাস পাবে।

আদিনাথ মন্দির সংস্কার কমিটির সভাপতি শান্তি লাল নন্দী জানিয়েছেন, মহেশখালী তথা কক্সবাজারের পর্যটন শিল্পে আদিনাথ মন্দিরের ভূমিকা অপরিসীম। তাই প্রতি বছর পর্যটন খাতে প্রচুর অর্থ যোগান দিচ্ছে মহেশখালীর আদিনাথ মন্দির। এ কারণে আদিনাথ মন্দিরকে ঘিরে গড়ে তোলা যেতে পারে আলাদা পর্যটন কেন্দ্র।

আদিনাথ সংস্কার কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রণব কুমার দে জানান, মহেশখালীর প্রধান সড়কের ওপর আদিনাথ সড়ক পয়েন্টে আদিনাথ মন্দিরের বিশাল গেইট নির্মাণ করা হলে দর্শনার্থীদের আদিনাথ যাতায়াতে অনেক সুবিধা সৃষ্টি হবে। ফলে দর্শনার্থী ও দেশ বিদেশ থেকে আসা পূজার্থীদের বিড়ম্বনা থাকবে না।

এদিকে ভারতের পশ্চিম বঙ্গ থেকে আসা রহিত শর্মা ও তার স্ত্রী শ্যামা শর্মা এ প্রতিবেদককে জানান, তারা শিবের মাথায় দুধ ঢালতে এবং মানসকামনা পূর্ণ করে পূজা দিতে এসেছেন আদিনাথ মন্দিরে। এ সুযোগে দেখা হয়ে গেল কক্সবাজারের পর্যটন স্পট সমূহ।

কুষ্টিয়ার পর্যটক দম্পত্তি মনোয়ার হোছাইন বলেন, হাজার বছর পূর্বে নির্মিত শ্রীলংকা সরকারের অর্থায়নে অপূর্ব নির্মাণ শৈলী সত্যিকার অর্থে ইতিহাস ও ঐতিহ্যের স্মৃতি চিহ্ন বহন করে আছে শত বছর ধরে। যা দেখে মন ভরে যায়।

আদিনাথ সংস্কার কমিটির যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক ও মন্দিরের  সেবায়েত তপন কান্তি দে  জানান, আদিনাথ মন্দিরের ইতিহাস আরো পুরোনো। অনেক বছর আগে তৎকালীন মুসলিম জমিদার নুর মোহাম্মদ সিকদার ছনের ছাউনি দিয়ে প্রথম মন্দির নির্মাণ করেছিলেন।

জনশ্রুতি রয়েছে নুর মোহাম্মদ সিকদারের একটি গরুর গাভী প্রতিদিন মৈনাক পর্বতের চূড়ায় অবস্থিত শীলা খণ্ডের ওপর দুধ ঢালতো, আর তা দেখে অনেকে বা রাখাল ছেলে জমিদার সিকদারকে বলতেন, তিনি তা বিশ্বাস করতেন না।

একদিন নুর মোহাম্মদ সিকদার স্বপ্ন দেখেন মৈনক পর্বতের চূড়ায় অবস্থিত দেবাদিদেব মহাদেবের শীলা লিপিটি সংরক্ষণের। গৃহ নির্মাণ করার স্বপ্নে আদেশ পান। এর পর তিনি সেখানে ঘর তৈরি করে দিয়েছিলেন। সেই থেকে মৈনাক পর্বতের চূড়ায় আদিনাথ মন্দিরের যাত্রা শুরু হয় মহেশখালী দ্বীপে। তাই হাজার বছরের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের এই তীর্থস্থান হয়ে উঠে বিশ্ব হিন্দু সম্প্রদায়ের মহা মিলনায়তন। কালে কালে তা হয়ে উঠে পর্যটকদের ও আকর্ষণীয় বিনোদন কেন্দ্র।

এজেড এন বিডি ২৪/ তন্নি 

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved@2021 aznewsbd24.com
Design & Developed BY MahigonjIT